করোনা ভাইরাস : করোনা ভাইরাস থেকে বাচতে করনীয় বিভিন্ন ধাপ ও এর লক্ষন।

SHARE

চীনের করোনা ভাইরাস থেকে বাচতে কি করবেন?




        

 করোনা ভাইরাসের পূর্ববর্তী লক্ষণগুলো হলো 

ক) সর্দি
খ) গলা ব্যথা
গ) কাশি
ঘ) মাথা ব্যাথা
ঙ) জ্বর
চ) হাঁচি
ছ) অবসাদ
জ) শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া।

এক্ষেত্রে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে যায় এবং যারা বয়স্ক তাদের এই ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে এবং নিউমোনিয়া বা শ্বাস নালীর ব্যাধির মতো মারাত্মক অসুস্থতায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও বেশি থাকে।

করোনা ভাইরাস থেকে বাচার উপায়

০১। দোয়া করুন। আল্লাহ্‌র কাছে আশ্রয় চান। 

০২। কিছু না থাকার চেয়ে ভালো
ভাইরাসের আক্রমণ থেকে বাঁচতে এমন মাস্ক কার্যকর বলে প্রমাণিত না হলেও এগুলো অন্তত কিছু জীবাণু মুখ কিংবা নাকে যাওয়া ঠেকাতে পারে।এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, মাস্ক পরা থাকলে মানুষের হাত যখন-তখন মুখ বা নাকে যায় না। আপনি যদি অসুস্থ হয়ে থাকেন তাহলে এমন মাস্ক অন্যদের আক্রমণ থেকে বাঁচাবে।
হাত ধোয়া

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শে কিন্তু মাস্ক পরার কথা নেই। তাদের এক নম্বর পরামর্শটি হচ্ছে নিয়মিত ভালোভাবে হাত ধোয়া। সবচেয়ে ভালো হয় অ্যালকোহলসমৃদ্ধ তরল ব্যবহার করা, যেমনটা ছবিতে দেখতে পাচ্ছেন।
সাবান, পানি হলেও চলবে
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, পানি ও সাবান দিয়ে হাত ধুলেও চলবে। তবে নিশ্চিত করতে হবে যেন পুরো হাত ভালোভাবে ধোয়া হয়।

সঠিকভাবে হাঁচি-কাশি দেয়া
 হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় ঠিক এভাবে মুখ আর নাক ঢাকতে হবে। তবে টিস্যুও ব্যবহার করতে পারেন। সেক্ষেত্রে ব্যবহারের পর টিস্যুটি দূরে ফেলে দিয়ে হাত ভালোভাবে ধুতে হবে। তেমনিভাবে শার্ট আর সোয়েটারটিও ধুয়ে ফেলতে হবে।

দূরে থাকুন!
এই পরামর্শটি সবার জন্য কার্যকর নাও হতে পারে। সেটি হচ্ছে, যার জ্বর ও কাশি আছে তার কাছ থেকে দূরে থাকুন। আপনার যদি অসুস্থ মানুষের সেবা করতে হয় তাহলে অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিন।

জ্বর হলে ডাক্তারের কাছে যান, ঘুরতে নয়!
জ্বর, কাশি কিংবা শ্বাসকষ্ট হলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ডাক্তারের কাছে যেতে হবে। যেখানে জনসমাগম বেশি সেসব জায়গায় যাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

অর্ধসিদ্ধ নয়!
মাংস খুব ভালোভাবে রান্না করতে হবে। অর্ধসিদ্ধ হলে চলবে না। কাচা মাংস, দুধ কিংবা প্রাণীর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ এমনভাবে নড়াচড়া করতে হবে যেন সেগুলো রান্না হয়নি এমন খাবারের সংস্পর্শে আসতে না পারে।
- নয়া দিগন্ত 



১। শুরু থেকে কোভিড-১৯ নিয়ে অল্প যে কজন মানুষ কনসিসটেন্টলি সেন্সিবল কথা বলে যাচ্ছেন তাদের একজন ড. জন ক্যাম্পবেল। গত প্রায় দু মাস ধরে সচেতনতা সৃষ্টির চেষ্টা করে যাচ্ছেন ব্রিটিশ এই ভদ্রলোক। উনার কথাবার্তা টু-দা পয়েন্ট এবং ফ্যাক্ট-বেইসড। কোভিড-১৯ এর এয়ারবর্ন হওয়া এবং বৈশ্বিক মহামারী পরিস্থিতি শুরু হওয়ার সম্ভাবনাসহ বেশ কিছু বিষয় নিয়ে বলেছিলেন WHO এর ঘোষণা আসার বেশ আগেই। আমি হাইলি রেকোমেন্ড করবো তার ভিডিওগুলো ফলো করার জন্য। [১]
ড. ক্যাম্পবেলের একটা অ্যাসেসমেন্ট হল কোন দেশে কোভিড-১৯ এর কারণে মৃত্যু দেখা গেলে ধরে নিতে হবে বেশ কিছুদিন ধরে ভাইরাস সেখানে আছে। সাধারণত কোন দেশে করোনার আবির্ভাবের দ্বিতীয় বা তৃতীয় সপ্তাহে প্রথম মৃত্যুর খবর আসতে শুরু করে।
.
২। ইটালিতে করোনায় প্রথম মৃত্যুর খবর পাওয়া গেল ফেব্রুয়ারি ২১ তারিখ। এক সপ্তাহ পর মৃতের সংখ্যা ২১ জন। পরের সপ্তাহে সংখ্যাটা ১৯৭। তাঁর ৭ দিন পর ১২৬৬। স্পেইনে প্রথম মৃত্যু দেখা দিল মার্চের ৩ তারিখ। ১০ তারিখ হতে হতে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা ৩৬। মার্চের প্রথম সপ্তাহে ৪০১। গতকাল (মার্চ ১৮) পর্যন্ত স্পেইনে মোট মৃতের সংখ্যা ৬৩৮। ইরানে প্রথম সপ্তাহে মারা গেল ৪ জন, পরের সপ্তাহে ৩০ জন। তার পরের সপ্তাহে ৯০ জন। তার এক সপ্তাহ পর মোট মৃতের সংখ্যা পাঁচশো ছাড়িয়ে গেল। যদিও ইরানের থেকে আসা ডেইটার ব্যাপারে কিছু আপত্তি এসেছে। অনেকের মতে ইরান অসুস্থ ও মৃতের মোট সংখ্যা গোপন করছে। [২]
.
৩। এবার একটা হাইপোথেটিকাল সিচুয়েশানের কথা বলি। মনে করি একটা দেশের নাম চ-দেশ। চ-দেশ পৃথিবীর সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলোর একটি। কন্ট্যান্ট ট্রেইসিং, মিটিগেইশান এমনকি ট্রিটমেন্টের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থার ধারকাছে কোন কিছু এ দেশে নেয়া হয়নি। তার ওপর টেস্টিংও হচ্ছে না। জনগণের মধ্যেও তেমন কোন সচেতনতা নেই। বরং 'করোনা নিয়ে আতঙ্কের কিছু নেই' – জাতীয় ভিডিও ভাইরাল প্রায় ২/৩ সপ্তাহ যাবত। এ দু সপ্তাহে ভাইরাসের ক্যারিয়াররা বিভিন হাট-বাজার, কনসার্ট আর বীচে ঘোরাঘুরি করেছেন। কেউ কেউ হসপিটালে গেছেন। ভাইরাসা হয়তো ডাক্তার-নার্সদের মধ্যেও ছড়িয়েছে।
.
চ-দেশের মন্ত্রী আর প্রশাসনের দাবি হল সরকার প্রধানের অপার্থিব অসাধারণত্বের কারণে করোনা চ-দেশে সুবিধে করতে পারবে না। বরং করোনা মোকাবেলায় চ-দেশ বাকি পৃথিবীর জন্য রোলমডেল হবে। অলরেডি অর্ধেক রোলমডেল হয়ে গেছে, এমন অবস্থা। রোলমডেল হওয়া নিয়ে ব্যস্ততার কারনেই বোধহয় মানুষ হসপিটালে চিকিৎসা পাচ্ছে না। চিকিৎসা না পেয়ে রোগি মারা যাবার খবর পাওয়া যাচ্ছে। দেশের মিডিয়াতে করোনা পরিস্থিতির বাস্তব ছবি উঠে আসছে না। কারণ মিডিয়াতে কী যাবে না যাবে তা ঠিক করে দেয় সেই দেশের সরকার।
.
চ-দেশে প্রথম মৃত্যুর খবর পাওয়া গেল মার্চের ১৮ তারিখ। যদি ড. ক্যাম্পবেলের অ্যানালিসিস সঠিক হয় তাহলে ধরে নেয়া যায় প্রায় ২/৩ সপ্তাহ যাবত চ-দেশে কোভিড-১৯ ছড়িয়েছে। এখনো ছড়াচ্ছে। যদি চ-দেশে ইটালি, ইরান এবং স্পেইনের মৃত্যুর হারের প্যাটার্ন পুনরাবৃত্তি হয়, তাহলে আগামী দু সপ্তাহের মধ্যে সেখানে মৃতের সংখ্যা ১৫০/২০০ তে পৌছানোর কথা।
.
চ-দেশের সরকার এবং মিডিয়া অবশ্যই এই ভয়াবহ বাস্তবতা স্বীকার করতে পারবে না। তাহলে কী করার? মৃত্যু ঠেকানোর তো উপায় নেই, কারণ কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ভাইরাস ছড়িয়ে গেছে। এখন?
.
চ-দেশের চতুর সরকার যদি আসলেই শত শত মৃতের সংখ্যা চাপা দিতে চায় তাহলে যে কাজটা করতে পারে তা হল দেশে ২/৩ সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করা। এই লকডাউনের সময় কেউ বাইরে বের হতে পারবে না। প্রয়োজনে ১৪৪ ধারা জারি করা যেতে পারে। লকডাউন এবং ১৪৪ ধারার সুযোগে ভয়ভীতি দেখিয়ে মৃতদের পরিবারদের ম্যানেজ করা যেতে পারে। মিডিয়া ব্ল্যাকআউট হবে। শুধু প্রকাশ পাবে চ-দেশের সরকারের ঠিক করে দেয়া ‘তথ্য’। মাঝে মাঝে অল্প কিছু মৃত্যুর খবর হয়তো শোনা যাবে। যদি সমস্যা বেশি হয় তাহলে সোশ্যাল মিডিয়া বন্ধ করে দেয়া হবে। তারপর ভালোয় ভালোয় লাশের মিছিল কমে এলে, চ-দেশের সরকার চেষ্টা করবে এই চরম মানবিক বিপর্যয় ও ব্যর্থতাকে নিজেদের দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা সফলতা হিসেবে দেখানোর।
.
৪। আবারো মনে করিয়ে দেই, ওপরের কথাগুলো হাইপোথেটিকাল। পরিচিত কিংবা অপরিচিত কোন দেশের সাথে কথাগুলো মিলে গেলে তার জন্য লেখক দায়ী না। চ-দেশের বাস্তবতায় লকডাউন কি জেনুইনলি প্রয়োজন কিনা, বা কার্যকর হবে কি না - সেটা নিয়ে কিছু কিন্তু এ হাইপোথিসিসে বলা হচ্ছে না। এখানে বলা হচ্ছে চ-দেশের চতুর সরকার কী করতে পারে, এবং কীভাবে লকডাউনকে ব্যবহার করতে পারে, তার অনেক সম্ভাবনার মধ্যে একটি সম্ভাবনা নিয়ে।
তবে হাইপোথিসিস যদি সত্য হয় তাহলে চ-দেশের মানুষ খুব দ্রুতই হয়তো লকডাউন দেখতে পাবে। আগামী ৭-১০ দিনের মধ্যে। আমি দুআ করি আমার হাইপোথিসিস যেন ভুল হয়। চ-দেশের দুর্ভাগা মানুষগুলোর যেন কষ্টের সাথে সাথে এই নাটকের মধ্য দিয়েও যেতে না হয়।
----
১। জন ক্যাম্পবেলের চ্যানেল লিঙ্ক - https://www.youtube.com/user/Campbellteaching/videos
- চিন্তাপরাধ


করোন ভাইরাস / করোনাভাইরাস যা আজকাল চীনে প্রচুর 

আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে এবং আস্তে আস্তে এর প্রভাব বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় দেখা যাচ্ছে। এর শিকার হয়ে অনেকে প্রাণ হারিয়েছেন। চীনের উহান অঞ্চল থেকে শুরু করে, ভাইরাসটি দ্রুত চীন জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে, আন্তর্জাতিক ভ্রমণের কারণে ভাইরাসটি এশিয়া ছাড়াও ইউরোপ এবং আমেরিকাতে ছড়িয়ে পড়েছে।

 করোনাভাইরাসগুলি খুব বেশি ছড়িয়ে যায় না, তাই সমস্ত দেশই খুব সাবধানতা অবলম্বন করছে।

সর্বোপরি, এই ভাইরাসটি কী, কী বলা হয়েছিল এবং কীভাবে এটি শুরু হয়েছিল। এই পোস্টে, আমরা এই ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত লোকদের মধ্যে কীভাবে রোগ এবং লক্ষণগুলি দেখা যায় সে সম্পর্কে কথা বলব।

করোন ভাইরাস কী



আপনার তথ্যের জন্য, আমাদের বলুন যে এই ভাইরাসটি 1960 সালে আবিষ্কৃত হয়েছিল। করোনা ভাইরাস হ'ল একধরণের ভাইরাস যা স্তন্যপায়ী প্রাণী এবং পাখিগুলিতে রোগ ছড়ায়। 

এই ভাইরাসটি মানুষের শ্বাস-প্রশ্বাসকে সংক্রামিত করতে পারে যা কখনও কখনও মানুষের জন্য মারাত্মক প্রমাণিত হতে পারে। এই ভাইরাস নাক, গলা, সাইনাসগুলিতে সংক্রামিত হয় এবং নিউমোনিয়ার মতো রোগের কারণ হয়।

 31 ডিসেম্বর 2019 এ, চীনের উহান অঞ্চলে এই ভাইরাস সম্পর্কিত একটি ঘটনা প্রকাশিত হয়েছিল, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লুএইচও) এই ভাইরাসটির নাম দিয়েছে 2019 - এনসিওভি (নভেল স্ট্রেন ক্যারোনা ভাইরাস)।

এটি ভাইরাস (এসএআরএস) এবং (এমইআরএস) এর মতো ভাইরাসের পরিবারের সদস্য। এসএআরএস 2003 এবং মার্স 2012 সালে ভয়াবহ ধ্বংস ঘটায় যার ফলে অনেক লোক প্রাণ হারিয়েছিল।


জানা গেছে যে করোনার ভাইরাস চীনের উহান এলাকার সামুদ্রিক বাজার থেকে শুরু হয়েছিল এবং সেখান থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছিল, কিছু গবেষণায় বলা হয়েছে যে ভাইরাসটি বাদুড় এবং সাপ থেকে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে।


করোনা ভাইরাসের লক্ষণসমূহ

করানো ভাইরাসের সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে মাথা ব্যথা, মাথা ঘোরা, জ্বর, নাক দিয়ে যাওয়া, কাশি, শ্বাস নিতে অসুবিধা, নিউমোনিয়া, গলা ব্যথা, গলা ব্যথা, বমিভাব, ডায়রিয়া, শরীরের ব্যথা। শুরুতে, এই ভাইরাস ফুসফুসকে প্রভাবিত করে এবং যদি আরও গুরুতর আকারে গ্রহণ করা হয় তবে এটি জীবনের পক্ষেও বিপজ্জনক হতে পারে এবং শরীরের সমস্ত অঙ্গকে প্রভাবিত করে এবং কিডনি, লিভার এবং হার্টের ব্যর্থতার কারণ হতে পারে। 

এই ভাইরাসগুলি নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কাইটিস, শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমণ, গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ট্রাকে সংক্রমণের মতো রোগের কারণ হতে পারে।

করোনভাইরাস এড়ানো যায় কীভাবে?


চীন যেমন ভাইরাস বেশি ছড়িয়েছে এমন ভাইরাসে আক্রান্ত দেশে যাওয়ার বিষয়টি এড়িয়ে চলুন, এই ভাইরাসের সাথে সম্পর্কিত রোগের লক্ষণ রয়েছে এমন কারও সাথে যোগাযোগ করবেন না, বিশেষত যখন চীন করোন ভাইরাস / করোনাভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত ব্যক্তি আপনি কি এসেছেন?

 যদি কোনও ব্যক্তির উপরে বর্ণিত লক্ষণগুলি থাকে তবে তার উচিত অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে দেখা করতে। কারাওনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরে স্কুল, জনসমাগমের জায়গায় এবং কাজ করার পরে ঘরে বসে থাকবেন না, সেক্ষেত্রে আপনি কেবল নিজেকে রক্ষা করবেন না, যারা আপনার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ করছেন তাদেরও রাখবেন।

এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষার পদ্ধতিগুলির মধ্যে সাধারণত সংক্রামক রোগ এড়ানোর জন্য সাধারণত গৃহীত সমস্ত জিনিস অন্তর্ভুক্ত থাকে যেমন নিয়মিত আপনার হাত ধোয়া, কাশি বা হাঁচির সময় হাত বা কনুই দিয়ে coveringেকে রাখা ইত্যাদি। কারও সাথে হাত মিলবে না, চোখ, নাক এবং মুখে হাত দেওয়া এড়াতে হবে।


কারোনা ভাইরাসের চিকিত্সা কী এবং এই ভাইরাসের ঝুঁকিতে থাকা লোকেরা? 

কারোনা ভাইরাস সম্পর্কিত আরও তথ্য বিজ্ঞানীদের কাছে পাওয়া যায় না এবং বিজ্ঞানীরা কারোনা ভাইরাসের কারণে এটি সম্পর্কে তথ্য পাচ্ছেন। 

এই রোগের জন্য নির্দিষ্ট কোনও চিকিত্সা বা নিরাময় এখনই পাওয়া যায় না। ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সম্পর্কিত রোগ নিরাময়ের জন্য ওষুধ দেওয়া হচ্ছে।


কারোনা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত কোনও ব্যক্তির কাছে না আসা পর্যন্ত কারোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ভারতের লোকদের কোনও হুমকি নেই  এটি বেশিরভাগ চীনেই ছড়িয়ে পড়ে এবং ভারত সরকারের প্রয়োজন যে এটি এই ভাইরাসটিকে ভারতে আসতে দেবে না এবং যদি এরকম কোনও ঘটনা ঘটে থাকে তবে তা অন্যের মধ্যেও ছড়িয়ে না যায়, এমন পরিস্থিতিতে এটি ছড়িয়ে পড়া বন্ধ করা শক্ত। পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।



বন্ধুরা আশা করি কারোনা ভাইরাস সম্পর্কিত এই তথ্যগুলি আপনার পক্ষে উপকারী প্রমাণিত হবে। আপনার যদি কোনও প্রশ্ন থাকে তবে আপনি মন্তব্যটি আপনার কাছে আমাদের কাছে রাখতে পারেন। স্বাস্থ্যের সাথে সম্পর্কিত আমাদের আগত সমস্ত নিবন্ধগুলির তাত্ক্ষণিক বিজ্ঞপ্তি পেতে বিনামূল্যে এবং আমাদের ফেসবুক পেজের জন্য সাবস্ক্রাইব করুন 







ইদানীং লোকেরা ভাইরাসজনিত প্রাদুর্ভাবের খবর শুনে অস্থির হয়ে পড়েছে যা নিউমোনিয়া তৈরি করতে পারে যা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার শত শত মানুষকে আক্রমণ করে। এই ভাইরাসটি নিউমোনিয়া হিসাবেও পরিচিত।
চীনের নতুন ভাইরাস এর নাম ঃ Novel Corona Virus

নিউমোনিয়া হ'ল তীব্র সংক্রমণ বা প্রদাহ যা শরীরে প্রবেশকারী ভাইরাস, ব্যাকটিরিয়া, পরজীবী এবং ছত্রাকের মতো অণুজীবের কারণে ফুসফুসের টিস্যুগুলিকে আক্রমণ করে।

সাধারণত এই রোগটি স্ট্রেপ্টোকোকাস , স্ট্যাফিলোকোকাস এবং লেজিওনেলা দ্বারা হয় ।

তবে এখন এশিয়ার একটি দেশে প্রাদুর্ভাবের কারণটি কোনও সাধারণ ভাইরাস নয় যা প্রায়শই নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির মধ্যে পাওয়া যায়। এটি চীনের করোনা ভাইরাস

যেমনটি আগে থেকেই জানা গিয়েছে, এই ভাইরাসটি ক্রমবর্ধমান তীব্র শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ (এসএআরএস) এবং মধ্য প্রাচ্যের শ্বাসযন্ত্র সিন্ড্রোম (এমইআরএস) এর উত্থানের কারণও তৈরি করে যা বিশ্বের হাজার হাজার মানুষকে প্রভাবিত করে।

 ড। ফেনী ফিত্রিণী, এসপি। পি (কে), এমপিডি

 কেউ একজন পালমোনারি এবং শ্বাস-প্রশ্বাস বিশেষজ্ঞ হিসাবে কাজ করছেন এবং পরিবেশগত ফুসফুসের পরামর্শদাতা যিনি পন্ডক ইন্দাহ হাসপাতালে অনুশীলন করেছেন, বিনতারো জয়া করোনার ভাইরাসের কারণে নিউমোনিয়ায় সংক্রমণ এবং এর লক্ষণ সম্পর্কে ব্যাখ্যা করেছিলেন এবং কীভাবে এটি প্রতিরোধ করতে পারেন।


সাধারণ নিউমোনিয়ায় করোনার ভাইরাসজনিত লক্ষণগুলির মধ্যে অনেকগুলি মিল রয়েছে। তবে অন্যান্য লোকের মধ্যে সংক্রমণ রোধ করতে এই রোগটি অবিলম্বে পরিচালনা করা ভাল।

করোনা ভাইরাস কিছু লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:


  1. শুকনো কাশি 
  2. সর্দি নাকের লক্ষণ 
  3. জ্বর হয়
  4. শ্বাসকষ্ট 
  5. অলসতা 


একটি শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ যা বেশ মারাত্মক
যদি সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে কেউ আক্রান্ত দেশগুলিতে বেড়াতে বা বাস করে থাকে এবং এনসিওভিতে আক্রান্ত বা ইতিবাচকভাবে সংক্রামিত কোনও দেশের পশুর হাটে এসেছিল এমন ব্যক্তির সাথে শারীরিক যোগাযোগ করেছে বা যোগাযোগ করেছে তবে এই বিষয়গুলিতে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া দরকার।



করোনা ভাইরাস থেকে নিউমোনিয়া সম্পর্কে সতর্ক থাকুন, 
এই লক্ষণগুলি এবং কীভাবে এটি প্রতিরোধ করবেন

নিউমোনিয়া প্রতিরোধ

ইন্দোনেশীয় ফুসফুসের ডাক্তারদের (পিডিপিআই) মাধ্যমে, ইন্দোনেশিয়ার প্রজাতন্ত্রের স্বাস্থ্য মন্ত্রক জনসাধারণকে সর্বদা স্বাস্থ্যকর শরীর বজায় রাখার আহ্বান জানায় যাতে বাইরে বাইরে মুখোশ পরে, পর্যাপ্ত বিশ্রাম নেওয়া হয়, এবং ভ্রমণের সময় পরিশ্রম করে হাত ধোয়া হয়, বিশেষতঃ সংক্রামিত দেশ
যদিও ইতিমধ্যে কিছু ভ্যাকসিন রয়েছে যা নিউমোনিয়া প্রতিরোধ করতে পারে যেমন নিউমোকোকাল ভ্যাকসিন (পিসিভি বা পিপিএসভি 23), এবং এইচআইবি ভ্যাকসিন,

 কিন্তু এখনও করোনার জন্য  কিছু নেই যে এই মুহুর্তে স্থানীয়ভাবে ছড়িয়ে থাকা করোনার ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য কোনও নির্দিষ্ট টিকা নেই। এটি কারণ নিউমোনিয়া একটি নতুন ধরণের করোন ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট।

এর মধ্যে কিছু করোন ভাইরাস দ্বারা সংক্রমণ এড়ানোর জন্য করা যেতে পারে, যথা:

ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চল বা অঞ্চল এড়িয়ে চলুন।

জ্বরের লক্ষণগুলি অনুভব করার সময় সতর্ক থাকুন, 

শ্বাসকষ্টের সাথে কাশি এবং তাত্ক্ষণিকভাবে নিকটস্থ হাসপাতালে যান।

বিশেষত মুখ, নাক এবং চোখ পরিচালনা করার আগে বা পাবলিক স্থাপনাগুলি পরিচালনা করার পরে যত্ন সহকারে হাত ধোওয়ার মাধ্যমে ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে মনোযোগ দিন।

20 সেকেন্ডের জন্য তরল সাবান এবং জল দিয়ে হাত ধুয়ে দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় তারপর তোয়ালে বা টিস্যু দিয়ে শুকিয়ে নিন।

এছাড়াও, 70-80 শতাংশ অ্যালকোহল সামগ্রী সহ একটি হ্যান্ডরব ব্যবহার করাও হাত ধোয়ার বিকল্প হিসাবে করা যেতে পারে।

কাশি এবং হাঁচি দেওয়ার সময় সংক্রমণ রোধ করতে আপনার মুখ এবং নাক টিস্যু বা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখুন।

লক্ষণগুলি যেমন শ্বাসকষ্টের মতো খারাপ হয়ে উঠছে, তখন একটি মুখোশ পরে নিন এবং সঙ্গে সঙ্গে নিকটস্থ স্বাস্থ্যসেবাতে যান।

৩. যদি ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ দেশে চলে যান?
আপনি যদি বাধ্য হয়ে থাকেন বা ইতিমধ্যে এই ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত কোনও দেশে গিয়ে দেখেছেন তবে নিম্নলিখিত 

জিনিসগুলি করা উচিত:

প্রাণী বা পাখি স্পর্শ করা এড়িয়ে চলুন।
ভেজা বাজার, খামার বা লাইভ পশুর বাজারে যাওয়া এড়িয়ে চলুন।
যাদের শ্বাস নালীর সংক্রমণের লক্ষণ রয়েছে তাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ এড়িয়ে চলুন।

সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যবিধি নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন।

যদি আপনি মনে করেন যে স্বাস্থ্য সম্ভব নয় যেমন জ্বর বা কাশির লক্ষণ অনুভব করা অবিলম্বে একটি মুখোশ ব্যবহার করুন এবং অবিলম্বে চিকিত্সা পরিষেবাগুলি সন্ধান করুন।

ক্ষতিগ্রস্থ দেশ থেকে ফিরে আসার পরে, আপনি যদি এখনও জ্বর বা অন্যান্য লক্ষণগুলি অনুভব করেন এবং যাতায়াত ইতিহাসের ডাক্তারকে আগেই অবহিত করেন তবে আপনার মুখোশ ব্যবহার করা চালিয়ে যান এবং একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।
এই ভাইরাসটির কোনও নিরাময় নেই। যাইহোক, ধৈর্য ধরে রাখা এবং একটি পরিষ্কার এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করে আমরা এই রোগের বিস্তারকে ছড়িয়ে পড়া থেকে রক্ষা করতে পারি।
SHARE

Author: verified_user