Bangla Caption | Bengali Caption For DP and Instagram Facebook Status

Bangla Caption | Bengali Caption For DP and Instagram Facebook Status Download 2020


ছবি ঃ @bangla typography, @banglayLikhi
লেখাঃ ফেসবুক বিভিন্ন গ্রুপ।

 Bengali Caption Pic for DP

➤অনেক দিন পর তোমাকে দেখলাম তোমাকে দেখে থমকে দারিয়ে ছিলাম আমি খুব কষ্টে নিজেকে সামলে নিলামযখন তুমি আমাকে দেখে না দেখার ভান করলে তখন আমার দারুন লেগেছে তোমাকে সেই অনুভুতির কথা বলে বুঝাতে পারবো না_


➤তুমি যদি বাসো ভালো, চাঁদের মতো দেব আলো, যদি আমায় ভাবো আপন, হব তোমার মনের মতন, নদী যেমন দেয় মোহনা, তোমার ই আমি তোমার উপমা,
আমি যদি চলে যাই’ নীল আকাশের কাছে~
~আমায় তুমি খুজে নিয়ো’ সন্ধা তারার মাঝে~
~একা যদি লাগে তোমার’ মনে রেখো আমায়~
~দক্ষিনা বাতাস হয়ে আমি’ ছুয়ে দিবো তোমায়~


➤তোমাকে খুব মনে পড়ছে দিব তোমায় লাল গোলাপ। সপ্নে গিয়ে করবো আলাপ। বলবো খুলে আমার কথা। আছে যত মনের কথা। বলবো তোমায় ভালোবাসি। থাকবো দুজন পাশাপাশি।


➤ভালবাসা কি? তপ্ত মরুর বালুর শিখা, ভালবাসা কি? নদীর স্রোতে ভাসমান কোন ণৌকা, ভালবাসা কি? ভেসে আসা কোন সুখের ভেলা, ভালবাসা কি? দুখের মাঝে হাসি মিশ্রিত কান্না, ভালবাসা কি? কোন এক অজানা ঠিকানা? ভালবাসা কি? ভালবাসা কাকে বলে


➤যার মনটা পাথরের মতো শক্ত, জীবনে তাকেই ভালোবাসো। কারণ সেই পাথরে যদি একবার ফুল ফোটাতে পারো, তবে সেই ফুল শুধু তোমাকেই সুবাশ দিবে, আর কাউকে নয়।

Bangla Sad Quotes About Life Images


"বিশ্বাস তো শুধু তাকেই করা যায় 
যে বিশ্বাস এর যোগ্য হয়
 তাকে কি করে বিশ্বাস করবো
 যে বিশ্বাস এর যোগ্যই নয়"


➤হে সুখ, তুমি চলার পথে
নীরবে আসো কেন?
দুঃখ আসার শোরগোলেতে
হারাই যে তালজ্ঞানও!
~ আসিফ মেহ্‌দী


➤তোমার দেওয়া কষ্টের সিঁড়ি বানিয়ে ,
আমার উপরে ওঠার চেষ্টা ।
লেখা:- আয়েশা সিদ্দিকা

➤"কে বলেছে ছেলেরা কাঁদে না
কে বলেছে ছেলেরা কষ্ট পায় না
মানুষ বলতেই সবার কষ্ট হয়
সেই কষ্টে সবাই কাঁদে
আমিও তো একটা মানুষ"


➤"jibone sujog tarai pay
jara sujog er mane ta bojhe
tara ki kore sujog pabe
jara sujog er mane tai bojhe na
জীবনে সুযোগ তারাই পায়
যারা সুযোগ এর মানেটা বোঝে
তারা কি করে সুযোগ পাবে
যারা সুযোগ এর মানেটাই বোঝে না"


➤"Aaj janina tumi kothay achho
chaileo hoyto tomake khuje pabo na
jekhanei thako na kano khusi thako
aar kono din tomar kache jabo na
আজ জানিনা তুমি কোথায় আছো
চাইলেও হয়তো তোমাকে খুঁজে পাবো না
যেখানেই থাকো না কেনো খুশি থাকো
আর কোনো দিন তোমার কাছে যাবো না"


➤অযথাই তোমার রঙিন শহরে, খুঁজতে বের হয়ে ছিলাম,
হারিয়ে যাওয়া, আমার সাদা - কালো ভালোবাসাটাকে।
আজও বৃষ্টির ঘ্রাণের সন্ধান পেলে, ছুটে চলে যাই আমি,
সেই নিঃসঙ্গ কদম গাছটার কাছে, এক সাথে ভিজবো বলে।
- ০৫/০৮/২০২০ ইং...

➤কি ভাবছেন?
-আপনাকে ছাড়া সে ভালো নেই?
আরে,কেউ কারো জন্য অপরিহার্য না।
সব মুখে-মুখে।
যোগাযোগ বন্ধ করুন,দেখবেন খবরও নিচ্ছে না।
সস্তা কথায় ভুলে লাভ নেই,জীবন থেকে শিখুন।
চাওয়াটা কমিয়ে দিন,সুখী হবেন।
-তানভীর






➤আমরা যারা প্রতি নিয়ত একাকিত্বের সাথে লড়াই করি।
আমরা যারা মুঠোফোনে মিথ্যা একটা জগৎ তৈরী করি।
আমরা যারা দিনের শেষে না বলা কথা গুলো বলার লোক পাই না।।
বাইরে আকাশ ভাঙে, অঝোর ধারায় বৃষ্টি নামে।।
ভিতরে মন খারাপ গুলো আরো কষে আঁকড়ে ধরে।।
-  শ্রীজাত 

➤ক্ষনিকা - সোহেল রানা

তোমার খোজে শহর জুড়ে মেঘ নেমেছে
গলে গলে পাতায় পাতায়,
বেলকনির ওই গ্রিল ছুয়ে খুঁজছে তোমায় বারান্দায়।
তোমার খোজে গতকাল এক দমকা হাওয়া
শহর জুড়ে প্রলয় তুলেছে,
ফেরার পথে অভিমানে অচিন বৃক্ষের মূল ভেঙেছে।
তোমার খোজে এক চিলতে রোদ,
জানালার ঐ পর্দার ফাকে রোজ বিকেলে চোখ রাখে।
হারিয়ে তোমায় খুঁজে ফিরি এই শহরের পথে পথে,
আগুন্তুক নই—
তবু যেন নতুন করে খুঁজছি আমি শহর টাকে।
তোমার খোজে শহর জুড়ে আজ আধার নেমেছে,
না-কি শতাব্দীর ওই ভার বয়ে আজ—
চোখের আলো নিভে গেছে —তোমায় খুঁজে ।

Bengali Caption for Instagram Pictures


➤কবিতা  ভালোবাসার উক্তি
কলমে   মোঃ এরফানুল হক 
তারিখ ৩০/৭/২০২০
দিনের আলোতে আর
রাতের জোছনায়,
আমার এ দু'চোখে আমি
দেখি যে শুধু তোমায়।
অল্প অল্প করে তুমি আমার
হৃদয়ে বাদলে বাসা,
তোমায় নিয়ে ভাবা আমার
হলো যে পেশা।
কি আছে তোমার ওই
টোল পড়া গালে?
দেখলে আমার হৃদয়েরআনন্দের
কপাট যায় খোলে।
তোমায় নিয়ে করবো পুরোন
যত আমার আসা।
তোমায় নিয়ে বাধবো আমি
ভালোবাসার বাসা।
নেই কিছু আর আমার চোখে
শুধু তোমায় ভাবনায় রাখি,
রাতের জোছনায় আমার
হদয়ে তোমার ছবি আকি।

FB Caption English to Bangla For FB


➤কিছু মানুষ আপনাকে প্রতিশ্রুতি দিবে
সারাজীবন এক সাথে থাকার কিন্তু ভয়াবহ
সত্যিটা এটাই তারা শুধু
আপনার সাথে কথা বলার সেই মুহূর্তটাকে
সুন্দর করার জন্য
মিথ্যে প্রতিশ্রুতিতে আপনাকে মুগ্ধ করেছিলো !
তারপর একদিন পরিস্থিতির অজুহাত দেখিয়ে আপনাকে ছুরে ফেলে অন্য কারো সাথে আনন্দে স্বাচ্ছন্দ্যে জীবন-যাত্রা কাটাবে !
_ বোরহান উদ্দিন

Bengali Caption for Love


➤এইযে তোর উঠোনে মেঘ নামলেই
দ্বার খুলে তুই বাইরে আসিস,
বৃষ্টি ছোঁয়ার বায়না ধরিস;
অথচ তোর নামেতেই বুকের মধ্যে
গোটা শ্রাবণ পুষে বেড়াই!
চোখের কোণে মেঘ জমে রয়,
কপোল ভেজে নোনা জলে;
কই,তুইতো কখনও তা ছুঁয়ে দেখিস না!
-বুকের মধ্যে শ্রাবণ
লেখা-মারজিয়া মহিমা



➤দৃশ্যপট স্বপ্নে আঁকা
লুকিয়ে তুমি কোন সুদুরে
হয়তো ভবিষ্যতের আড়ালে
ঘাসের চাদরে শুয়ে একা
আকাশের পানে চেয়ে জেগে থাকা
তবে আজ এত একা কেন
আলো হয়ে দূরে তুমি!
------যুথি


Smile Status in Bengali



Sunset Caption in Bengali


➤কবিতা :ইচ্ছের ক্রন্দন
ইচ্ছে ছিলো দুজন মিলে আকাশ ছোঁবো
কোনো এক ভর দুপুর বেলা
তুমি ছুঁলে ঠিকি,
পাশে শুধু আমিই ছিলাম না।
আমার যে চৈএের দুপুর
তুমি যে বসন্তের ,
তোমার দুপুরে আমি শুধুই ধূলিকনা
আমার আকাশ ছোঁয়া তোমার সাথে,
সেতো স্বপ্ন লোকের পথে চলা।
ইচ্ছে ছিলো দুজন মিলে ঢেউ ছোঁবো
পড়ন্ত বিকেলে কোন এক নদীর তীরে,
তুমি ছুঁলে ঠিকি
শুধু কাছে আমিই ছিলাম না।
তুমি তো ঝরনার জল
আমি যে ডোবার
তোমার সাথে ঢেউ ছোঁয়া,
সে তো দিনের বেলার স্বপ্নে ডুবে যাওয়া ।
ইচ্ছে ছিলো দুজন মিলে পাহাড় ছোঁবো
তোমার হাতে হাত রেখে চূড়ায় যাবো,
তুমি গেলে ঠিকি
শুধু সাথে আমিই ছিলাম না।
তোমার আমার মাঝের পাহাড়টা অনেক বড়ো
তাই তোমার সাথে অন্য পাহাড় ছোঁয়া হলো না।
ইচ্ছে ছিলো দুজন মিলে পায়ে পা মেলাবো
অনন্তকাল ধরে হাঁটবো একসাথে,
তুমি হাঁটলে ঠিকি
শুধু পাশে আমিই ছিলাম না।
তোমার রাস্তা রঙিন ছিলো
আমারটা যে কাঁটায় ভরা
তোমার পায়ে বিঁধলে কাঁটা
আমারই হতো জ্বালাপোড়া,
তাই ভেবে আর হাঁটা হলো না।
লেখা :শেখর


➤ মা

যাদের মা দুনিয়াতে নাই
তারাই বুঝে মায়ের মূল্য কি,
মায়ের অভাব পূরণ কি হবে
আকাশের চাঁদ এনে দেই যদি।
মায়ের বিকল্প নেই ভূবনে
খুজোনা তার কোন তুলনা,
যতই ভালোবাসা দাও তুমি
মায়ের অভাব পূরণ হবে না।
শত দুঃখ পেয়েও সন্তান
যখন মায়ের ছোঁয়া পায়,
সব দুঃখ কষ্ট ভুলে
নিমিষেই শান্ত হয়ে যায়।
মায়ের বুকে সন্তানেরা
বেহেশতি সুখ পায়,
এমন সুখ বুঝি আর
দুনিয়ার কোথাও নাই।
যে মায়ের বুকে শিশুকালে
সুখ খুঁজে পেয়েছিলে,
সে মায়েরে শেষ বয়সে
কোন কারণে দুঃখ দিলে।
যে মা শত মুছিবতে সন্তানকে 
আগলে রাখে বুকে,
সে মায়েরে সন্তানেরা
আজ বৃদ্ধাশ্রমে রাখে।
- (এ এস এম শিহাব উদ্দিন)



 অনুভূতির অন্তরালে...... . 
-এইচ এম হৃদয় হাসান মুন্না

তুমি আমায় ভালো না- ই বা বাসো
তোমায় নিয়ে রোজ ঠিকই স্বপ্ন দেখি। 
তুমি আমায় নিয়ে না - ই বা ভাবো
তোমায় নিয়ে রোজ ঠিকই কাব্য লেখি।
তুমি আমার দিকে না-ই বা তাকাও
তোমায় দেখলে আমি ঠিকই চেয়ে থাকি।
তোমার কল্পনায় আমি না-ই বা আসি
আমার কল্পনায় তোমায় নিয়ে ঠিকই রঙিন ছবি আঁকি।
তুমি আমায় যতই ঘৃনা করো
তোমায় নিয়ে কল্পনায় রোজ ঠিকই সুখের ঘর বাধি।
তুমি আমার ভালোবাসা না-ই বা বুঝলে 
তোমায় দেখে রোজ রাতে ঠিকই আমি এখনো কাঁদি।

-

➤ " সুখনগর " সাঈদ জামান চন্দন

জলের তরঙ্গের মতো ভেসে চলি
নিঃশব্দ গতিতে এক মহানন্দা হয়ে
আমার সীমান্ত রেখা ছুঁয়ে সুখ নগর।
বেলা শেষে কিশোরীর এলো চুল
আছড়িয়ে পড়ে সুঢোল বুকের ওপর
হাপরের তালে ওঠে নামে নিঃশ্বাস
রতন কামারের হাত ধরে
পৌঁছতে পারেনি তিথী
স্বপ্নের সেই সুখ নগরে ....
কালো দাগ বাগডাস কাঁটাতার পাহারায়
পায়ের শব্দের কাছে হার মেনে
লাজ ছেড়ে সঙ্গমে লিপ্ত নদী তীর
জল খোঁজে জলে জীবনের আস্বাদ।
কিশোরী তিথী হন্যে হয়ে খুঁজে ফেরে
রতন কামরের শানিত সেই ফলা
কর্ষিত জমিনে বীজ ফলাবে বলে
শাদা সুখ তৃষ্ণায় লাল হয় রক্তিম শরীর
ভেজা ঠোঁট, ভেজা চোখ রক্তিম আভায়।
তিথী একা উঠে আসে জলে ভেজা শরীরে
কানার হাটে বিকিয়ে দেয় দেহ-মন
"ভালোবাসা" এখনো সুখ নগরের আশায়।।





➤জন্মভূমি
নেয়ামুল নাসির
তুমি হেমন্তের অতিতি পাখি
নবান্নের পাকা ধান,
স্নিগ্ধ শরতের জোস্না রাতের
তুমি শিউলীর সুঘ্রাণ।
তুমি বসন্তের কৃঞ্চচূড়া-পলাশে
মোহনীয় টান;
ঝরঝরে বরিষায় উন্মত্ত দরিয়ায়
তুমি উর্মির কলতান।
তুমি গ্রীষ্মের আম্র কাননের
ঝিঝি পোকর ঝি ঝি;
পদ্মার বুকে ডিঙি নৌকার
তুমি দুঃসাহসী মাঝি।
তুমি শীতে ঝরা শিশির ভেজা
দুর্বার হৃদয় চুমি;
জেগে আছো মাগো,প্রিয় স্বদেশ
আমার প্রিয় জন্মভুমি।




➤ভয়
শেখ মারুফুল ইসলাম
নিজেকে আমি
প্রাকাশ করতে পারি না,
লাগে বড় সংকোচ।
নিজের ভেতরে লুকিয়ে থাকি
কেউ রাখে না আমার খোজ।
ভাল হওয়ার কথা ছিল,
হলো কিছু মন্দ
তাইতো ঐ পথে চলা
হয়ে গেল বন্ধ।
কে কি ভাববে সে ভাবনা
করে দাও বন্ধ,
ভালো মন্দ বোঝনা
তুমি কি অন্ধ?
নিজেকে প্রকাশ কর
ঝেড়ে ফেল দিধা দন্দ।
ঐ পথ ও খুলে যাবে
যে পথ হল বন্ধ।





➤অবুঝ রে নিয়া পড়েছি বিশাল এক ঝামেলায়। আমি বলি একটা, আর সে বুঝে আরেকটা। আমি যতই রোমান্টিক ভাবে কথা বলিনা কেন, সব কথাই বৃথা...
সেদিন রাতে গার্লফ্রেন্ডকে ফোন দিলাম.....
আমি: হ্যালো বেবি, কি করো?
- ফুচকা খাই। তুমি খাবা?
আমি: না থাক, তুমিই খাও।
- জানো আমাদের বাসার নিচের ফুচকাওয়ালাটার
ফুচকা কি যে জোস, কি যে ইয়াম্মি।
তুমি না খাইলে বুঝবাই না।
আমি: খেতে হবে না, তোমার মুখে শুনেই বুঝতে পারছি।
আমি আল্লাদে গদ গদ হয়ে বললাম,
"আচ্ছা ধরো, এই মূহুর্তে আমি যদি তোমার পাশে
থাকতাম তাহলে তুমি কি করতা?
- ফুচকা খাইতাম, তোমাকেও দিতাম।
আমি: আচ্ছা ধরো, ফুচকা টুচকা কিছু নাই, শুধু
আমিই তোমার পাশে আছি..
- তাইলে বুয়াকে টাকা দিয়ে ফুচকা আনতে নিচে
পাঠাইতাম।
আমি কিছুটা বিরক্ত হয়ে বললাম,
"'মনে করো, তোমাদের বাসায় কোন বুয়া টুয়া নাই।
মানে ফুচকা নিয়ে আসার কোন মানুষ নাই।
তখন তুমি কি করতা?'
- সোনামনি, তুমি না আমার বাবু হও?
আমি কিছুটা গদগদ হয়ে বললাম, 'হ্যাঁ।'
- আমার খুশিই তো তোমার খুশি, তাই না?
আমি-'হ্যাঁ, বেবি!
-তাইলে আর কি? তুমি নিচে গিয়ে আমার জন্য ফুচকা
কিনে নিয়ে আসতা।
নিজের জুতা নিজের গালে মারতে ইচ্ছে করছে, রাগ
কন্ট্রোল করে বললাম,
"'মনে করো, নিচের ফুচকাওয়ালা সেদিন আসেই নাই।
নিজের ফুচকা নিজেই খেয়ে ওই ব্যাটার ডায়রিয়া
হইছে। ঢাকার শহরের সব ফুচকাওয়ালার নিউমোনিয়া
হইছে। ফুচকার দোকানগুলাতে অনির্দিষ্টকালের জন্য
ধর্মঘট। ভালো করে তাকায় দেখো, তোমার পাশে শুধু
আমি,আমি, আমি, আমি তখন তুমি কি করতা?'
- বলো কি, এত খারাপ অবস্থা? তাইলে ইউটিউবে
ফুচকা বানানোর রেসিপি দেখে তোমাকে আমার জন্য
ফুচকা বানায় আনতে বলতাম। আমি জানি, তুমি
আমার জন্য এইটুকু কষ্ট অবশ্যই করতা।
তুমি না আমার বাবু হও...
আমি আর কিছু বলতে পারিনাই, ওপাশ থেকে শুধু
ফুচকা খাওয়ার কচ মচ শব্দ শুনতে পাচ্ছি...
গল্প: অবুঝ গার্লফ্রেন্ড
-- সুবোধ মন্ডল


➤তোমাকে ছুঁতে চেয়ে  - ইন্দ্রাণী বন্দ্যোপাধ্যায়
তারিখ -০৭/০৮/২০২০

তোমাকে ছুঁতে চেয়ে
শুরু পথ চলা,
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
বেহিসেবী কথা বলা।
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
অতলান্ত ঢেউ,
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে
নেই আপন কেউ।
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
বুক ফাটা হাহাকার,
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
সীমা হীন পারাপার।
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
শেষ বোঝাপড়া,
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
সকল কিছু হারা।
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
অপেক্ষা অনিমেষ,
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
আমিত্ব নিঃশেষ।
তোমাকে ছুঁতে চেয়ে,
বসন্ত ফাগুন,
তোমাকে ছুঁতে চেয়েই...... আজ
একটুকরো আগুন।।



➤ভুলতে বসেছি রে,,
সেই চেনা পথে কাটানো ক্ষানিক সময়ের সুন্দর মুহুর্তগুলো।
বিকেল বেলা কত্ত কত্ত খেলার আসর হতো।।
আর ঐ যে জোনাকি পোকা হাতে নিয়ে নিজেকে সবচেয়ে সুখী মনে করা,
সাইকেল চালাতে পড়ে গিয়ে পথিমধ্যেই কেঁদে দেওয়া।
ঐ যে আগের বাসাটা,
সেখানের পরিচিত মুখগুলো আজ দেখলে বিরক্তির ভাব আসে,
সমালোচনা করতে তারাও কি আর বাদ রাখে?
আর নানাভাই,,
নানাভাইয়ের হাত ধরে দোকানে গেলেই হলো,
ব্যাস, নিজেকে কোটিপতি মনে হতো।।
আর সেইবার,, মামার দেওয়া পুতুলটা,,
ভেঙে গেছে তাই কিভাবেই যে কেদেছিলাম,,মনে আছে তা?
ঈদ আসলেই শুরু হতো আমাদের হিংসা,,
পুরাতন হওয়ার ভয়ে কারো জামা কাউকে দেখানো যাবে না।।
সেই পিছনের বেঞ্চের কত জমানো স্বৃতি আমাদের,,
মনে আছে!! বেঞ্চ শুধু থাকতো তোর আর আমার নামের।
ধুলো পড়া আজ সেই বেঞ্চে কলমের চাপে খোদাই করা,
আমাদের নামগুলোর অস্তিত্বটুকুও নেই, রমা!!
ভুলতে বসেছি রে,,
ব্যস্ততার শহরে তোকেও ভুলে যেতে শুরু করেছি শেষে।
সবস্বৃতিগুলো আমার স্বৃতির ডাইরীতে ধরে রাখতে পারি নি রে,,
ডাইরী বন্ধুটাকেও ভুলতে বসেছি যে।।
ছবি- ইচ্ছেমতি
কলমে- Khadija Nur Mourin




➤ভেবেছিলে আমার ভালোবাসার তীব্রতা
বার বার উপেক্ষা করে তুমি জিতে যাবে।
আর আমি তোমাকে না পাওয়ার আক্ষেপে
ঠুকরে ঠুকরে মরবো।
তাই বুঝি প্রতিবার তুমি ফিরে এসেও আসোনি!
আর আমিও অবুঝের মতো তোমার আকাশটা
খুব করে ছুঁতে চাইতাম!
আমার আবেগ মাখা প্রেম যখন তোমার
আকাশটা ছুঁই ছুঁই করতো।
তখনি তুমি কেমন মেঘের ভেলায় ভেসে বেড়াতে,
লুকোচুরি খেলতে!
যখনি তোমার ভীষণ কষ্ট হতো,
একরাশ বিষন্নতা তোমায় আঁকড়ে ধরতো!
কিংবা তোমার বুকে অভিমান, অভিযোগের
সুবিশাল হিম শীতল বরফের পাহাড় জমতো,
তখনি তুমি হন্যে হয়ে ছুটে আসতে,
কড়া নাড়তে আমার দ্বারে!
আর আমি? আমি যে বোকার মতো
তোমার অপেক্ষারই প্রহর গুনতাম!
তুমি আমার সামনে আসলেই আমি কেমন
করে যেন তোমার চোখের ভাষা পড়ে নিতাম।
আমার ভালোবাসার উষ্ণতায় তোমার হৃদয়ের
বরফ জমা শত কষ্ট,অভিমান আর
বিষন্নতা এক নিমিষেই গলে যেত!
আর তুমি আবার হারিয়ে যেতে।
হয়তো আমি তোমার প্রয়োজনের প্রিয়জন ছিলাম!
কিন্তু তুমি ভুলেই গিয়েছো,
সময়ের সাথে সাথে লোহায়ও মরিচা ধরে।
আর আমি?আমি তো নরম কাঁদা মাটির তৈরি মানুষ!
তোমার তিব্র অবহেলা আর হুট-হাট হারিয়ে
যাওয়ার অভ্যেস,
আমি কখনো মানতে পরিনি।
তাইতো তোমার প্রতি জমানো ভালোবাসা গুলো
ঢেকে যায়,
তোমার তিব্র অবহেলা আর উপেক্ষার আড়ালেই!
সময় যায়,ব্যস্ততা বাড়ে।
এখন আর আমার সময় কই তোমায় নিয়ে ভাববার!
জানি,তোমার নতুন মানুষ তোমায় বেশ
আগলে রেখেছে।
যে স্থান আমার থাকার কথা ছিল ,
আজ হয়তো তার পুরোটা দখলদারিত্ব অন্য কারো!
তবুও আমার কোন অভিযোগ নেই তোমার প্রতি।
তোমার প্রতি আমার যতো অভিমান আর
অভিযোগ গুলো তো সেদিনই হারিয়ে গিয়েছে।
যেদিন তুমি নিজ মুখে স্বীকার করেছিলে,
তোমার মনের রাজত্বে আমার স্থায়িত্বকাল
ক্ষনিকের ছিল!
আমি সেদিন আহত হৃদয় নিয়ে
অবাক হয়ে তোমায় পরখ করছিলাম,
কি নির্লিপ্ততা, সহজ সাবলীল তোমার ভাব ভঙ্গি!
শুনেছি সকল প্রণয়ের সম্পর্কের সমাপ্তিটা নাকি,
"ভালো থেকো" শব্দ দুটোর মাঝেই আঁটকে থাকে!
সেদিন শেষ বারের মতো তোমার মুখে উচ্চারিত
শব্দ দুটোও ছিল "ভালো থেকো!"
সে শব্দ দুটো আজও আমার কানে প্রতিধ্বনিত হয়।
আর আমি নতুন করে ভালো থাকতে শুরু করি!
আজকাল যখন হঠাৎ তোমার নাম্বার থেকে
কল বা এসএমএস আসে,
আমি অতো দূর থেকেও তোমার মন খারাপের
কারণ পড়ে নেই।
আমি তোমায় পড়তে এতোটা বিভোর থাকি যে
আমার আর তোমার কল রিসিভ করা বা
এসএমএসের উত্তর দেওয়া হয়ে উঠেনা!
ও প্রান্ত থেকেও তোমার আর খবর আসে না।
আমি তখন দীর্ঘশ্বাস ফেলে ভাবি,তোমার নতুন
মানুষের সাথে বোধহয় অভিমানের শেষ হলো!
তবে এসবে আমার আজকাল একটুও কষ্ট হয়না,
অল্পতেই কষ্ট পাওয়ার অভ্যেস এখন আর
আমার নেই।
শুধু মাঝে মাঝে ভীষণ ইচ্ছে হয়।
ইচ্ছে হয় তোমাকে চিৎকার করে জানিয়ে দিতে
"ভালো আছি,ভলো থেকো!"
~ভালো থেকো
লেখাঃ-মারজিয়া মহিমা



➤শঙ্খচিল
উচ্ছাসিত, উৎফুল্ল, উজ্জ্বল কতো কী!
তোমার দৃষ্টি জুড়ে দেখেছো সবি।
এই অনন্ত চাহনির একটি পলক দিও,
আমি শিশির জলে স্নান করা ভোর হবো।
তুমি ব্যস্ত, জনাকীর্ণ, তুমি বিভোর
তোমার হেটে চলা ক্লান্ত পথের প্রান্তে
একটু থেমো,
আমি করুন, শীতল, শান্ত হবো
হবো কোনো এক মায়াবী প্রহর।
তুমি প্রাণ চঞ্চল, তোমার ছুটে চলা,
চল-অবিচল।
বলা আর না বলার গ্লানি গুছিয়ে একটু বসো,
আমি পড়ন্ত বিকেলের গাড়ো হলুদ রোদ্দুর হবো।
ভাসিয়ে ভেলায়, সীমানাহীন গগন ডালায়
তোমার গহীন পুষে রাখা
দুঃখ গুলোর নিরব জ্বালায়
হালকা হতে যদি যাও কভু,
আমি সেই গগনে ভেসে বেড়ানো মেঘের শুভ্র আভা হবো।
তোমার ইচ্ছে- অভিলাষ, আশা নিরাশার পিয়াষ
তোমার চাওয়া পাওয়ার বিষাদ গুছিয়ে নিতে,
যদি হাটো কোনো মায়াবতী নদীর তীর ধরে,
ক্লান্ত দেহের ভগ্ন হৃদয়ে, নগ্ন পায়ে।
পাছে একটু তাকিয়ে দেখো,
আমি বাঁধন হারা, হবো মুক্ত
তোমার ক্লান্তি, বিষাদ, গ্লানি
স্ব যতনে করে সিক্ত।
টলমলে জলে ছায়া ফেলে,
জল ছুঁয়ে ছুঁয়ে আমি যাবো উড়ে
তুমি দেখো,
আমিই শঙ্খচিল হবো।
মিতু…

Powered by Blogger.