লেবানন বিস্ফোরণঃ বৈরুত ব্লাস্ট এর কারন ও লেবানন এর ইতিহাস গৃহযুদ্ধ ও ধর্ম

লেবানন দেশ কেমন?  লেবানন বিস্ফোরণ বৈরুত ব্লাস্ট এর কারন ও  লেবানন এর ইতিহাস গৃহযুদ্ধ ও ধর্ম



লেবাননের বৈরুতে দুদিন আগে যে ক্যাটাসট্রফি টা হলো সেটা নিয়ে একটু স্টাডি করতে বসছিলাম। এক ফাঁকে দেশটা নিয়েও একটু স্টাডি করে নিলাম।

  1. লেবানন ইতিহাস
  2. লেবাননের ধর্ম
  3. লেবানন আয়তন


ক্ষমতার অপব্যবহার, দায়িত্ব অবহেলা এবং দুর্নীতি কি পরিমাণ চরম পর্যায়ে গেলে একটা দেশের জনগণ সরকারের উপর সম্পূর্ণ আস্থা হারিয়ে একটা প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানের নিকট সাহায্য পাঠাতে বিশ্বাবাসীর কাছে আবেদন করতে পারে তার একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ হলো এই লেবানন।


  • লেবানন যুদ্ধ
  • লেবাননের জনসংখ্যা
  • লেবাননের মেয়েরা


প্রথমে বৈরুতের ঘটে যাওয়া ক্যাটাসট্রফিটার পেছনের কারণটা জানা যাক। 

লেবানন বিস্ফোরণ পেছনের কারণ


ঘটনার শুরু ২০১৩ সালে। ২৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিয়ে রাশিয়ান একটি শিপ জর্জিয়া হয়ে মোজাম্বিক যাচ্ছিলো। 



কিন্তু যাত্রা পথে শিপটিকে বৈরুত পোর্টে স্থান নিতে হয় কারণ শিপটির ওনার পোর্ট ফি দিতে ব্যর্থ হয়। 

দুদিন আগে বিস্ফোরণের আগ পর্যন্ত শিপটির অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ভরা কার্গোগুলো এই পোর্টের ওয়াইরহাউজেই পড়ে ছিলো।

ওয়াইরহাউজে স্টোরড হওয়া এই অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের ভয়াবহতা অাঁচ করতে পেরে বৈরুত পোর্ট অথোরিটি সেই ২০১৪ সাল থেকে লেবানন সরকারকে চিঠি দিয়ে আসছিলো।

 কিন্তু সরকার কোন ভ্রক্ষেপও করেনি।

পোর্ট অথোরিটি চিঠিতে এমনও বলেছিলো যে, এই পদার্থ গুলো লেবানিজ আর্মিকে ডোনেট করে দিলে আর্মিরা তা কাজে লাগতে পারবে। 

কিন্তু তারপরেও সরকারের পক্ষ থেকে বিন্দুমাত্র কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট মূলত কৃষিজাত সার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। আবার এটি কিন্তু এক্সপ্লোসিভ তৈরীর প্রধান উপাদান হিসেবেও প্রায়শই ব্যবহৃত হয়। 

১৯৯৫ সালের ওকলাহোমার সিটি বোম্বিং, ২০০২ সালে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে বোম্বিং, ২০১১ সালে নরওয়তে হওয়া টেরোরিস্ট বোম্বিং এটাকের মূল অস্ত্র ছিলো মূলত এই অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট।

এই ভয়ঙ্কর জিনিস ৬টা বছর বৈরুত পোর্টে অসুরক্ষিত অবস্থায় পড়ে ছিলো। খুব সহজেই শুরুতেই ব্যাপারটা মিমাংসা করা যেতো। 

অথচ সরকার ছিলো নিশ্চুপ। যার ফলাফল আমার দুদিন আগেই দেখতে পেলাম। বিস্ফোরণটি এতো ভয়বাহ ছিলো যে ১৫০ মাইল দূরের সাইপ্রাস থেকে পর্যন্ত লক্ষ্য করা গেছে।

১৩৭ জন মানুষ মারা গেছেন। ১০০ জন মিসিং। ৫০০০ জন আহত। ৩ লাখের বেশি মানুষ ঘরছাড়া।

ব্রিটেনের শেফিল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা বলছেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানের হিরোশিমা শহরে যে পারমানবিক বোমা ফেলা হয়েছিল, সেটির দশভাগের এক ভাগ শক্তি ছিল বৈরুত বিস্ফোরণে।

তারা বলছেন, বৈরুতের এই বিস্ফোরণ ইতিহাসের সবচেয়ে বড় পারমানবিক-বহির্ভূত বিস্ফোরণ।

পুরো যুদ্ধবিদ্ধস্তেরর মতো একটি নগরীতে পরিণত হয়েছে এই বৈরুত। আসলেই কি যুদ্ধবিদ্ধস্তের মতো? 

লেবাননের জনগণ কিন্তু সরকারে বিরুদ্ধে একটি মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে বেশ কয়েক বছর ধরেই। বিস্ফোরণটি থেকে বেরিয়ে এবার একটু দেশটার সম্পর্কে কিছু কথা জানা যাক।

দুর্নীতি এই সরকারের প্রতিটা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার শিরায় শিরায় রক্তের মতো বাহিত হয়। করোনার মহামারীর অনেক আগে থেকেই অর্থনীতিতে ধু্ঁকতে থাকা একটি দেশ। 

বিশ্বের ৩য় সর্বোচ্চ ঋণ গ্রহিতা দেশ এই লেবানন। তাদের বর্তমান কারেন্সির রেট এখন ৮৫ শতাংশের নিচে।

সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী দের কে দেশের প্রায় সব মানুষই এখন চোখের বিষ হিসেবে দেখে। দুইএকজন যেসব ভালো কর্মকর্তা রয়েছে তাদেরকে পর্যন্ত সরকার ও.এস.ডিতে যেতে বাধ্য করছে। 

বলতে গেলে এমন একজনও সরকারি কর্মকর্তা নেই যে যার কাছে সাধারণ মানুষ একটু সাহায্যের আবেদন করবে।

''বৈরুত কাঁদছে, বৈরুত চিৎকার করছে, মানুষ এখন উদভ্রান্ত ও ক্লান্ত'', বিবিসিকে বলছিলেন চলচ্চিত্রকার জুড চেহাব।

বৈরুতের অধিবাসী চাদিয়া এলউচি এই মুহূর্তে হাসপাতালে লড়ছেন। ক্ষোভ উগড়ে দিলেন তিনিও, ''আমি সবসময়ই জানতাম কতগুলো অযোগ্য লোক আর অযোগ্য সরকার এই দেশ পরিচালনা করছে।

 কিন্তু আমি বলতে চাই এখন তারা যেটা করেছে সেটা ভয়ংকর অপরাধ।''

অন্যদিকে অ্যামনেস্টি ইন্ট্যারন্যাশনাল এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বিস্ফোরণের ঘটনায় স্বতন্ত্র তদন্তের দাবী জানিয়েছে। 

তারা সরকারি তদন্তের স্বচ্ছতা ও বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছে।

একরকম নিরুপায় হয়ে নিজস্ব উদ্যোগে লেবাননের জনগণ একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান 'লেবানন ফুড ব্যাংক অর্গানাইজেশন' খুলেছে যেখানে যারা ইচ্ছুক তাদেরকে ডোনেশন পাঠানোর অনুরোধ করেছে তারা। (https://donate.lebanesefoodbank.org/)


তারা এখন সরাসরি একটি ম্যাসেজ প্রচার করছে বিশ্ববাসীর কাছে,
"আপনারা কেউ যদি আমাদের কে সত্যিই কোন সাহায্য সহযোগিতা করতে চান, কাইন্ডলি সেটা লেবানন সরকার এর কাছে পাঠাবেন নাহ।

সরকার আমাদের সবকিছু চুরি করে নিয়ে গেছে, তারা আপনাদের পাঠানো এই সাহায্য ও চুরি করে নিয়ে যাবে।'

মৃত্যুপুরী তে পরিণত হয়েছে দেশটি। যতই স্টাডি করছি ততই অবাক হচ্ছি। জন্ম থেকেই দেশটি অর্থনীতিতে পিছিয়ে। বর্তমানে যা একটু পর্যটন শিল্পের মাধ্যমে অর্থনীতি চাঙ্গা হতে শুরু করেছিলো, সেটিও সরকারের নিজস্ব চাহিদা মেটাতেই অদ্ভুতভাবে অদৃশ্য হয়ে যাচ্ছে।


সাড়ে ১০ হাজার বর্গকিমি এর ছোট একটি দেশ। জনসংখ্যা মাত্র ৬৮ লক্ষ। এই দেশের যে পর্যটন শিল্প আছে তা দিয়েই দেশের প্রত্যেকটা মানুষ তাদের চাহিদা মিটিয়ে কুল না পাওয়ার কথা ছিলো।

 আরো আছে সমৃদ্ধ ব্যাঙ্কিং খাত, কৃষি খাত। এছাড়াও ক্যামিকেল, মেটাল প্রোডাক্ট, ট্রান্সপোর্ট ইকুইপমেন্ট উৎপাদনেও দেশটি খুব পরিচিত।

অথচ ৬৮ লক্ষ মানুষের মধ্যে ৩০ শতাংশ মানুষই দরিদ্র সীমার নিচে বসবাস করছে। ৬.২ শতাংশ লোক বেকার। এভাবে চলতে থাকলে আর কয়েকটি বছরের মধ্যে উদ্বাস্তুর মতো ঘুরে বেড়াবে মানুষ।


ভাবতেই কষ্ট লাগে শুধু মাত্র সরকারের কিছু কর্মকর্তার দুর্নীতি, দায়িত্ব অবহেলার কারণে একটি পুরো দেশ, এতগুলো মানুষ আজ ধ্বংসের মুখে।
Powered by Blogger.