হ্যাকারের ছবি পিকচার ইমেজ ডাউনলোড : পৃথিবী সেরা ১০ হ্যাকারের নাম ও পরিচয়

হ্যাকারের ছবি বলতে আসলে অনলাইনে Anonymous এর মাস্ক পরা টাইপ ছবিই বেশি প্রচলিত। এই পোস্টে হ্যাকারের ছবি পিকচার ডাউনলোড করতে পারবেন। 

বিভিন্ন টাইপের Hacker এর পিক আপলোড করেছি। সাথে পৃথিবীর সেরা ১০জন হ্যাকার এর নাম ও ছবি আপনাদের কাছে তুলে ধরা হবে। 

  1. বিভিন্ন প্রকার হ্যাকিং পদ্ধতি
  2. হ্যাকিং কত প্রকার
  3. হ্যাকিং কত প্রকার ও কি কি
  4. আমি ফেসবুক হ্যাকার হতে চাই
  5. হ্যাকিং কি ict
  6. হ্যাকার নাম
  7. এথিক্যাল হ্যাকার কাদের বলা হয়

হ্যাকারের ছবি ডাউনলোড ঃ  Hacker Photos Free Download

হ্যাকারের ছবি পিক

হ্যাকারের ছবি পিকচার Download

হ্যাকারের ছবি পিকচার ডাউনলোড

হ্যাকিং ছবি পিকচার

মাস্ক পড়া ছবি পিকচার

Anonymous Hacker পিকচার 

এ্যানোনিমাস হ্যাকার ছবি

এ্যানোনিমাস হ্যাকার ছবি পিকচার

এ্যানোনিমাস হ্যাকার ফটো ডাউনলোড

এ্যানোনিমাস হ্যাকার ফটো

হ্যাকিং ওয়ালপেপার

হ্যাকার পিকচার ফটো কালেকশন

হ্যাকার পিকচার ছবি

হ্যাকার পিকচার ছবি ডাউনলোড

সাইবার হ্যাকিং ছবি

সাইবার ওয়ার ছবি পিক ডাউনলোড

সাইবার ওয়াল পেপার ছবি

কম্পিউটার ওয়ালপেপার

হ্যাকার পিক ডাউনলোড

হ্যাকারের ওয়ালপেপার ইমেজ 

হ্যাকারের ইমেজ

হ্যাকারের ইমেজ ওয়াল পেপার

হ্যাকার পিকচার

হ্যাকার কাকে বলে?

হ্যাকিং শিখার উপায়

Anonymous হ্যাকার কারা তাদের পরিচয় ও ইতিহাস

হ্যাকার পিকচার ডাউলোড

হ্যাকার পিকচার ডাউনলোড

হ্যাকিং মোবাইল ওয়ালপেপার 

হ্যাকার মোবাইল ওয়ালপেপার

হ্যাকার মোবাইল ওয়ালপেপার ডাউনলোড

হ্যাকার মোবাইল ওয়ালপেপার ছবি

হ্যাকার কি? হ্যাকার হতে চাই

হ্যাকার হতে চাই কিভাবে

হ্যাকার এবং হ্যাকিং নিয়ে যা জানা দরকার

বাংলাদেশের সেরা হ্যাকার কে?

ব্ল্যাকহ্যাট হ্যাকার বাংলাদেশ

বাংলাদেশের হ্যাকিং গ্রুপ

এথিক্যাল হ্যাকার কাদের বলা হয়

যারা বৈধ ভাবে বিভিন্ন ডিভাইস বা নেটওয়ার্ক এর ত্রুটি খুজে বের করতে অনুমতি নিয়ে হ্যাকিং করে তাদের কে এথিক্যাল হ্যাকার  বলা হয়। এথিক্যাল হ্যাকার অনেকটা বৈধ চোরের মত!

আপনার বাড়িতে চোর কিভাবে কোন পথে প্রবেশ করতে পারে এটি যদি আপনি আগে থেকেই অনুমোদিত চোর দিয়ে খুজে বের করতে পারেন তাহলে প্রবেশের সেই পথ কে আপনি সহজেই বন্ধ করতে পারবেন। এতে করে আপনার অজানাতে কোন চোর ঐ পথ ইউজ করে আপনার বাড়িতে চুরি করতে পারবেনা।

ঠিক এই কাজটাই করা হয় এথিক্যাল হ্যাকার দিয়ে। এথিক্যাল হ্যাকাররা কোন ওয়েবসাইট, নেটওয়ার্ক, ডিভাইস এর বাগ, দুর্বলতা খুজে বের করে এবং সেগুলোর সমাধান করে যাতে অন্য কোন হ্যাকার সেসব বাগ ইউজ করে ক্ষতি করতে না পারে। 

ব্ল্যাকহ্যাট হ্যাকাররা আপনার ডিভাইস বা ওয়েব সাইট হ্যাক করে আপনার টাকা সম্পদ কিংবা তথ্য চুরি করে ক্ষতি করবে। তাদের মূল উদ্দেশ্য আপনাকে ইউজ করে তাদের আর্থিক লাভবান হওয়া।

আর এথিক্যাল হ্যাকাররা আপনার থেকে টাকা নিয়ে আপনার অনুমতি নিয়েই আপনার হয়ে আপনার ডিভাইস বা সাইটের ভুল ত্রুটি বের করে দিবে।



সাইবার ৭১ wikipedia বাংলা

এথিক্যাল হ্যাকার

হ্যাকার তালিকা

বাংলাদেশি হ্যাকার

বাংলাদেশি সেরা হ্যাকার

Laz carlw হ্যাকার

বাংলাদেশি হ্যাকার নিউজ


হ্যাকার নাম ১০ জন সেরা হ্যাকারের তালিকা

১. কেভিন মিটনিক
আমেরিকার হ্যাকিং-এর একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব, কেভিন মিটনিক অল্প বয়সে তার ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন। ১৯৮১ সালে, তার বিরুদ্ধে প্যাসিফিক বেল থেকে কম্পিউটার ম্যানুয়াল চুরি করার অভিযোগ আনা হয়েছিল। ১৯৮২ সালে, তিনি উত্তর আমেরিকান প্রতিরক্ষা কমান্ড (NORAD) হ্যাক করেছিলেন।

১৯৮৯ সালে কেভিন ডিজিটাল ইকুইপমেন্ট কর্পোরেশনের (ডিইসি) নেটওয়ার্ক হ্যাক করেছিলেন এবং তাদের সফ্টওয়্যারগুলির কপি তৈরি করেছিলেন। পরে তাকে গ্রেফতার করা হয়, দোষী সাব্যস্ত করে কারাগারে পাঠানো হয়। তার শর্তসাপেক্ষে মুক্তির সময়, তিনি প্যাসিফিক বেলের ভয়েসমেইল সিস্টেম হ্যাক করেছিলেন।

২। এ্যানোনিমাস গ্রুপ
এ্যানোনিমাস একটি ফোরামে 4chan মেসেজ বোর্ডে 2003 সালে শুরু হয়েছিল। 2008 সালে এ্যানোনিমাস চার্চ অফ সায়েন্টোলজির বিরুদ্ধে নামে এবং তাদের ওয়েবসাইট গুলো হ্যাক করতে শুরু করে। তাদের ফ্যাক্সে কালো ছবি সেন্দ করতে থাকে যাতে প্রিন্টার এর কালি দ্রুত অপচয় হয়।

৩। আদ্রিয়ান লামো
2001 সালে, 20-বছর-বয়সী অ্যাড্রিয়ান লামো রয়টার্সের একটি নিবন্ধ সংশোধন করতে এবং প্রাক্তন অ্যাটর্নি জেনারেল জন অ্যাশক্রফ্টের জন্য দায়ী একটি জাল উদ্ধৃতি যোগ করতে ইয়াহুতে একটি অরক্ষিত বিষয়বস্তু পরিচালনার সরঞ্জাম ব্যবহার করেছিলেন। লামো প্রায়ই সিস্টেম হ্যাক করত এবং তারপর প্রেস এবং তার শিকার উভয়কেই অবহিত করত। কিছু ক্ষেত্রে, তিনি তাদের নিরাপত্তা উন্নত করতে সাহায্যও করেন।

ল্যামো 2002 সালে হ্যাকিং কে অনেক দূরে নিয়ে গিয়েছিলেন, যখন তিনি দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসের নেট হ্যাক করেছিলেন। লামো "দ্য হোমলেস হ্যাকার" উপাধি অর্জন করেছিলেন কারণ তিনি একটি ব্যাকপ্যাক নিয়ে রাস্তায় ঘোরাঘুরি করতে পছন্দ করতেন এবং প্রায়শই তার কোনও নির্দিষ্ট ঠিকানা ছিল না।

৪। আলবার্ট গঞ্জালেজ
নিউইয়র্ক ডেইলি নিউজ অনুসারে, "সুপনাজি" নামে পরিচিত গঞ্জালেজ তার মিয়ামি হাই স্কুলে "কম্পিউটার বিশেষজ্ঞদের সমস্যাযুক্ত প্যাক লিডার" হিসাবে শুরু করেছিলেন। তিনি অবশেষে অপরাধমূলক বাণিজ্য সাইট Shadowcrew.com-এ সক্রিয় হয়ে ওঠেন এবং এর সেরা হ্যাকার এবং মডারেটরদের মধ্যে একজন হিসেবে বিবেচিত হন। 22 বছর বয়সে, গনজালেজকে নিউইয়র্কে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল লক্ষ লক্ষ কার্ড অ্যাকাউন্ট থেকে ডেটা চুরির সাথে সম্পর্কিত ডেবিট কার্ড জালিয়াতির জন্য। জেলের সময় এড়াতে, তিনি সিক্রেট সার্ভিসের একজন তথ্যদাতা হয়ে ওঠেন, শেষ পর্যন্ত কয়েক ডজন শ্যাডোক্রু সদস্যকে অভিযুক্ত করতে সহায়তা করেন।

অর্থপ্রদানকারী তথ্যদাতা হিসাবে তার সময়কালে, গঞ্জালেজ তার অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যান। সহযোগীদের একটি গ্রুপের সাথে, গঞ্জালেজ অফিসম্যাক্স, ডেভ এবং বাস্টারস এবং বোস্টন মার্কেট সহ কোম্পানি থেকে 180 মিলিয়নেরও বেশি পেমেন্ট কার্ড অ্যাকাউন্ট চুরি করেছে।

হ্যাকার পিক ডাউনলোড

৫। ম্যাথিউ বেভান এবং রিচার্ড প্রাইস
ম্যাথিউ বেভান এবং রিচার্ড প্রাইস হলেন ব্রিটিশ হ্যাকারদের একটি দল যারা 1996 সালে গ্রিফিস এয়ার ফোর্স বেস, ডিফেন্স ইনফরমেশন সিস্টেম এজেন্সি এবং কোরিয়ান অ্যাটমিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট (KARI) সহ একাধিক সামরিক নেটওয়ার্কে হ্যাক করেছিল। বেভান (কুজি) এবং প্রাইস (ডেটাস্ট্রিম কাউবয়) কে আমেরিকান সামরিক ব্যবস্থায় KARI গবেষণা ডাম্প করার পরে প্রায় তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু করার জন্য অভিযুক্ত করা হয়েছে। বেভান দাবি করেন যে তিনি একটি ইউএফও ষড়যন্ত্র তত্ত্ব প্রমাণ করতে চেয়েছিলেন।

৬। জিনসন জেমস আনচেটা
জিনসন জেমস অ্যানচেতার ক্রেডিট কার্ডের ডেটার জন্য সিস্টেম হ্যাকিং বা সামাজিক ন্যায়বিচার প্রদানের জন্য নেটওয়ার্ক ক্র্যাশ করার কোন আগ্রহ ছিল না। পরিবর্তে, Ancheta বট-সফ্টওয়্যার-ভিত্তিক রোবটগুলির ব্যবহার সম্পর্কে কৌতূহলী ছিল যা কম্পিউটার সিস্টেমগুলিকে সংক্রামিত করতে পারে এবং শেষ পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

২০০৫ সালে ৪০০,০০০ টিরও বেশি কম্পিউটারে সে ভাইরাস প্রবেশ করাতে সক্ষম হয়। আরস টেকনিকার মতে, তারপরে তিনি এই পিসি গুলিকে বিজ্ঞাপন সংস্থার কাছে ভাড়া দিয়েছিলেন এবং নির্দিষ্ট সিস্টেমে সরাসরি বট বা অ্যাডওয়্যার ইনস্টল করার জন্য অর্থ প্রদান করেছিলেন। আনচেতাকে ৫৭ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। বটনেট প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য এই প্রথম কোনো হ্যাকারকে জেলে পাঠানো হলো।

৭। মাইকেল ক্যালস
ফেব্রুয়ারী 2000-এ, 15 বছর বয়সী মাইকেল ক্যালস, "মাফিয়াবয়" নামেও পরিচিত, আবিষ্কার করেছিলেন কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটারের নেটওয়ার্কগুলি দখল করা যায়।
মাইকেল ক্যালস Ddos এটাকের মাধ্যমে সে সময়ে ইয়াহু, ডেল এর মত বড় বড় কোম্পানির ওয়েব সাইট ক্রাশ করাতে সক্ষম হয়। মাইকেল ক্যালস এর এটাকের ফলে ইয়াহুর ১ বিলিওন ডলারের বেশি ক্ষতি হয়।

৮। কেভিন পলসেন
1983 সালে, একজন 17 বছর বয়সী পলসেন, ওরফে ডার্ক দান্তে ব্যবহার করে, পেন্টাগনের কম্পিউটার নেটওয়ার্ক আরপানেটে হ্যাক করেছিলেন। যদিও তিনি দ্রুত ধরা পড়ে গেলেও, সরকার পলসেনকে বিচার না করার সিদ্ধান্ত নেয়, যিনি সেই সময়ে একজন নাবালক ছিলেন। পরিবর্তে, তাকে সতর্ক করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল।

পলসেন এই সতর্কবার্তায় মনোযোগ দেননি এবং হ্যাকিং চালিয়ে যান। 1988 সালে, পলসেন একটি ফেডারেল কম্পিউটার হ্যাক করেছিলেন এবং ফিলিপাইনের ক্ষমতাচ্যুত রাষ্ট্রপতি ফার্দিনান্দ মার্কোসের সাথে সম্পর্কিত ফাইলগুলি চুরি করেছিলেন। কর্তৃপক্ষ আবিষ্কার করলে, পলসেন আত্মগোপনে চলে যান। তিনি যখন পলাতক ছিলেন, তখন পলসেন ব্যস্ত ছিলেন সরকারি ফাইল হ্যাক করতে এবং গোপনীয়তা প্রকাশ করতে। তার নিজস্ব ওয়েবসাইট অনুসারে, 1990 সালে, তিনি একটি রেডিও স্টেশন প্রতিযোগিতা হ্যাক করেছিলেন।

পলসেনকে শীঘ্রই গ্রেফতার করা হয় এবং তিন বছরের জন্য কম্পিউটার ব্যবহার করতে বাধা দেওয়া হয়। এরপর থেকে তিনি হোয়াইট হ্যাট হ্যাকিং এবং সাংবাদিকতায় রূপান্তরিত হয়েছেন, সাইবার নিরাপত্তা এবং ওয়েব-সম্পর্কিত সামাজিক-রাজনৈতিক কারণ নিয়ে লেখালেখি করেছেন Wired, The Daily Beast এবং তার নিজের ব্লগ থ্রেট লেভেলের জন্য।

৯। জোনাথন জেমস
উপনাম কমরেড ব্যবহার করে, হ্যাকার জোনাথন জেমস বেশ কয়েকটি কোম্পানি হ্যাক করেছে। নিউ ইয়র্ক টাইমসের মতে, জেমসের দৃষ্টি আকর্ষণ করার বিষয়টি ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের কম্পিউটারে হ্যাক করা। জেমসের বয়স তখন মাত্র ১৫।

পিসি ম্যাগের সাথে একটি সাক্ষাত্কারে, জেমস স্বীকার করেছেন যে তিনি আংশিকভাবে The Cuckoo's Egg বইটি দ্বারা অনুপ্রাণিত ছিলেন, যা ১৯৮০ এর দশকে একটি কম্পিউটার হ্যাকারের সন্ধানের বিবরণ দেয়। তার হ্যাকিং তাকে সরকারী কর্মচারী, ব্যবহারকারীর নাম, পাসওয়ার্ড এবং অন্যান্য সংবেদনশীল ডেটা থেকে 3,000 টিরও বেশি মেসেজ অ্যাক্সেস করতে দেয়।

জেমসকে ২০০০ সালে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল এবং তাকে ছয় মাসের গৃহবন্দি করা হয়েছিল এবং বিনোদনমূলক কম্পিউটার ব্যবহার থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। যাইহোক, একটি প্রবেশন লঙ্ঘনের কারণে তাকে ছয় মাসের জেল খাটতে হয়েছিল। জনাথন জেমস সাইবার অপরাধ আইন লঙ্ঘনের জন্য দোষী সাব্যস্ত হওয়া সর্বকনিষ্ঠ ব্যক্তি।

২০০৭ সালে, TJX, একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোর হ্যাক করা হয়েছিল এবং অনেক গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য আপোস করা হয়েছিল। প্রমাণের অভাব সত্ত্বেও, কর্তৃপক্ষ সন্দেহ করে যে জেমস জড়িত থাকতে পারে।

২০০৮ সালে, জেমস বন্দুকের গুলিতে আত্মহত্যা করেছিলেন। ডেইলি মেইল ​​অনুসারে, তার সুইসাইড নোটে বলা হয়েছে, “আমি 'ন্যায়বিচার' ব্যবস্থায় বিশ্বাস করি না। সম্ভবত আমার আজকের কাজ, এবং এই চিঠি জনসাধারণের কাছে একটি শক্তিশালী বার্তা পাঠাবে। যেভাবেই হোক, আমি এই পরিস্থিতির উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছি, এবং নিয়ন্ত্রণ ফিরে পাওয়ার এটাই আমার একমাত্র উপায়।"

১০। ASTRA
এই হ্যাকার এই তালিকার অন্যদের থেকে আলাদা যে তাকে কখনোই প্রকাশ্যে চিহ্নিত করা হয়নি। যাইহোক, ডেইলি মেইল ​​অনুসারে, ASTRA সম্পর্কে কিছু তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। যথা যে তিনি 2008 সালে কর্তৃপক্ষের দ্বারা গ্রেপ্তার হয়েছিল এবং সেই সময়ে তাকে 58 বছর বয়সী গ্রীক গণিতবিদ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিনি প্রায় অর্ধ দশক ধরে ড্যাসল্ট গ্রুপে হ্যাকিং করছিলেন। সেই সময়ে, তিনি অত্যাধুনিক অস্ত্র প্রযুক্তি সফ্টওয়্যার এবং ডেটা চুরি করেছিলেন যা তিনি সারা বিশ্বের 250 জনের কাছে বিক্রি করেছিলেন। তার হ্যাকিং এর কারণে Dassault Group এর $360 মিলিয়ন ক্ষতি হয়েছে।

এ্যানোনিমাস হ্যাকার ওয়ালপেপার

বিভিন্ন প্রকার হ্যাকিং পদ্ধতি

হ্যাকিং নানাভাবে করা যায়। কারো আইডি বা একাউন্ট হ্যাক করার ৮টি পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এই লেখা পড়তে পারেন।  হ্যাকের উপায় সমূহ

হ্যাকিং কত প্রকার  ও কি কি

হ্যাকিং কত প্রকার কি কি এর উত্তর অনেক লম্বা হয়ে যাবে। হ্যাকিং অনেক ভাবে করা যায়। নতুন নতুন আরো অনেক পদ্ধতি বের হচ্ছে। তবে বহুল ভাবে ইউজ করা কিছু পদ্ধতি হলো ফিশিং হ্যাকিং, মেন ইন মিডল হ্যাকিং, সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং হ্যাকিং ইত্যাদি। 

আমি ফেসবুক হ্যাকার হতে চাই

আপনি ফেসবুক হ্যাকার হতে চান বুঝতে পারছি তবে আপনার জন্য জানিয়ে রাখি ফেসবুক হ্যাকার বলতে কোন হ্যাকার নাই। কিছু মানুষ আছে যারা ফিশিং পদ্ধতি, সিম ক্লনিং এসব এর মাধ্যমে কারো কারো আইডির এক্সেস নিতে পারে । এরাই নিজেদের ফেসবুক হ্যাকার দাবি করে। যা আসলে হাস্যকর। 

আপনি যদি কারো আইডি হ্যাক এর পদ্ধতি শিখতে চান তাহলে বলবো এসবের পিছনে দৌড়ানো খুবই বোকামি এবং সময় নষ্ট। উঠতি বয়সি কিশোররা নিজেদের পাওয়ার দেখাতে এসবের পিছনে সময় নস্ট করে। 

হ্যাকিং কি ict

হ্যাকিং হলো কারো কোন ডিজিটাল ডিভাইসে ইউজারের অনুমতি ছাড়া অবৈধ ভাবে প্রবেশ করা, তথ্য চুরি করা ইত্যাদি। 

Powered by Blogger.