ক্লোজআপ কাছে আসার গল্প : কালচারাল আগ্রাসন এবং তথাকথিত হাজার বছরের বাঙালি' সংস্কৃতি

আরেকটা বিষয় লক্ষ্য করুন।
কালচার হিসেবে, বিশেষ করে কিশোর-তরুণদের কালচার হিসেবে আজ যা চলে তার প্রায় সবকিছুই পশ্চিম থেকে নেয়া। কমসেকম গত দুই দশক ধরে এই অবস্থা চলে আসছে। বাবা-মার প্রজন্মের 'কালচারের' সাথে সন্তানদের 'কালচারের' কোন মিল নেই।
.
কালচারের মাধ্যমে প্রজন্মগত এবং জীবনদর্শনগত দূরত্ব তৈরি ব্যাপারটা পশ্চিমে ব্যাপকভাবে ঘটে গত শতাব্দীর ষাটের দশকে। সেক্সুয়াল রেভ্যুলুশন, হিপি মুভমেন্ট, কাউন্টারকালচার, রক অ্যান্ড রৌল - এসবের মাধ্যমে। ক্লোসআপ যেমন তাদের ক্যাম্পেইনের ওয়াইট পেইপারে বলেছে তাদের এই ক্যাম্পেইনে ভিত্তির ষাটের দশকের যৌন বিপ্লবের আদর্শ।
.
আমাদের মত দেশগুলোতে এই হাওয়া আসতে শুরু করে আশি ও নব্বইয়ের দশকে। ২০০০ সালের পর থেকে ইন্টারনেটের কল্যানে এই স্রোত পরিণত হয় বন্যায়। খুব দ্রুত পুরো বিশ্বজুড়ে তৈরি হয় এক মনোকালচার। জোড়াতালি দেয়া কুৎসিত এক নকশীকাঁথা।
.
ইন্টারনেট এই ধরনের সাংস্কৃতিক পরিবর্তনের খুবই শক্তিশালী এবং কার্যকরী মাধ্যম। আগে যে প্রক্রিয়া শেষ হতে বছরের পর বছর সময় লাগতো, এখন সেটা হয় মাসের ব্যবধানে। টিকটকের বদৌলতে অ্যামেরিকার সাবআর্বের কিশোরীদের মধ্যে শুরু হওয়া ট্রেন্ড পৌছে যাচ্ছে তিনশো ফিটের রাস্তায় বসে আড্ডা দেয় টিকটক অপুদের কাছে। তুরস্কের আইসক্রিম চ্যালেঞ্জের অনুকরণে নাচ ধরে দেশের হিজাব পরা আপুরা।
.
'হাজার বছরের বাঙালি' সংস্কৃতি এই সাংস্কৃতিক আগ্রাসন রুখতে পুরোপুরিভাবে ব্যর্থ। মিডিয়া এবং গ্লোবালিস্ট প্রতিষ্ঠানগুলো যে এজেন্ডা সেট করেছে, কিছু সময় পরে 'বাঙালি কালচার' তার আত্মীকরণ করে নিয়েছে। শুধু বাঙালি সংস্কৃতি না, মোটামুটি সব ট্র্যাডিশানাল সংস্কৃতির জন্যই এটা সত্য।
.
এধরনের সর্বগ্রাসী আগ্রাসনের মোকাবেলা নিছক 'ট্র্যাডিশন' দিয়ে করা সম্ভব না। কারণ নিছক ট্র্যাডিশনের ভিত্তি হল অতীতকে আকড়ে ধরা। পূর্বপুরুষের অনুসরণ। এখানে শক্ত কোন আকাঈদী, আদর্শিক উপাদান নেই।
.
'আমাদের পূর্বপুরুষ অমুক কাজ করেনি', 'আমাদের সমাজের সাথে এসব যায় না...' - এগুলো খুব দুর্বল অবস্থান। এগুলোর ভিত্তিতে বেশিদিন এই ঝড়ের সামনে টেকা যায় না। বেশি থেকে বেশি আগ্রাসনের গতি কিছুটা শ্লথ করা সম্ভব। এক প্রজন্ম হয়তো বাঁধা দিতে পারে, কিন্তু শিক্ষা, মিডিয়া, শিল্পের মাধ্যমে পরের প্রজন্মের মূল্যবোধ বদলে যায়। বদলে যায় চিন্তার ধরন। বাবামা-যে জিনিসের বিরোধিতা করেছে, সন্তান তা উৎসাহ ভরে গ্রহণ করে নেয়।
.
এভাবেই হয়, এভাবেই হয়ে আসছে।
.
আপনি ফ্রি লাভ এর চিন্তা গ্রহণ করলে সেটা শুধু 'পবিত্র ভালোবাসা', ট্রু-লাভ, কিংবা 'সৌলমেইট'-এর গল্পে সীমাবদ্ধ থাকবে না। এর সাথে লিভ টুগেদার আসবে, এলgiবিt আসবে, ট্র্যান্স আসবে। সামনে আরো অনেক কিছু আসবে। কারণ এই সব কিছু মিলে এক পরস্পর সংযুক্ত সম্পূর্ণতা। যার কোন এক অংশকে বিচ্ছিন্ন করে স্বতন্ত্রভাবে গ্রহণ বা বর্জনের সুযোগ নেই।
.
আপনি লিভ টুগেদারকে হ্যাঁ বলবেন কিন্তু এলজি টিভির ব্যাপারে গিয়ে সীমা টানবেন - তা হবে না। এটা যৌক্তিক না। আপনি নানা বুঝ দিয়ে নিজের মনে হয়তো এর বৈধতা তৈরি করবেন, কিন্তু সেটা অন্য কারো কাছে অর্থবহ হবে না। আপনার টানা সীমানা আপনার সন্তান মানবে না। এটাই লজিকাল, এটাই কনসিস্টেন্ট।
.
সভ্যতার যেকোনো অংশ তার পুরোটার সাথে সংযুক্ত। এক সুতো টানলে দেখবেন অসংখ্য অদৃশ্য আঁশ আর সংযুক্তির জালের মাধ্যমে বাকি অংশের সাথে তা যুক্ত। ‘ভালো’ মনে করে যে অংশটুকু আপনি আলাদা করে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন, তা আপনার ঘরে টুকরো টুকরো করে, খণ্ডে খণ্ডে, ধাপে ধাপে নিয়ে আসছে তার সম্পূর্ণ কাঠামো।
.
এজন্যই নিছক 'কালচারাল মুসলিম' কিংবা 'ইসলামিকেইট' সংস্কৃতির ধারণা দিয়ে আপনি এই আগ্রাসনের মোকাবেলা করতে পারবেন না। ভেসে যাবেন। যেভাবে আপনাদের আগে ভেসে গেছে খ্রিষ্টান এবং ইহুদীরা। এই আগ্রাসন, এই দ্বন্দ্ব মৌলিকভাবে আকীদাহ, এবং দ্বীনের দ্বন্দ্ব। ওয়ার্ল্ডভিউ এবং সভ্যতার দ্বন্দ্ব। বিশুদ্ধ, আপসহীন আকীদাহ এবং মানহাজ ছাড়া এই লড়াইয়ে জেতা দূরের কথা, টিকে থাকাও সম্ভব না। এটাকে সালাফি, ওয়াহাবি, ত।লেব।নী, মরু ইসলাম, বেদুঈন ইসলাম - যাই বলুন না কেন, বাস্তবতা এতে বদলাবে না।
.
আপসহীন আকীদাহ, মানহাজ, সালাফুস সালেহীনের অবস্থানের আলোকে দ্বীন ইসলামের সঠিক বুঝ আকড়ে ধরা ছাড়া এবং সক্রিয় বিরোধিতা ছাড়া এই আগ্রাসনের কবল থেকে নিজেকে এবং নিজের বংশধরদের ঈমান রক্ষা করা সম্ভব না। রূম আর কিসরার সাম্রাজ্য 'বেদুঈনরা'ই জয় করেছিল। কালচারালি অনেক বেশি সমৃদ্ধ কুরাঈশরা না
- Asif Adnan



দ্বিধাহীন কাছে আসা = যিনা, এলgবিt এবং ফাহিশাহর প্রচারণা।

.
'দ্বিধাহীন কাছে আসা'র অ্যাডটা মূল যে ক্যাম্পেইনের অংশ তার নাম হল Free To Love। এটা ক্লোসআপের পুরনো ক্যাম্পেইন। এই ক্যাম্পেইনের মূল উদ্দেশ্য বেইসিকালি যিনা এবং এলgবিt প্রমোট করা। এদের সাইট থেকে কিছু স্ক্রিনশট দিচ্ছি।
.
এরা মোটামুটি খোলাখুলি বলছে, এদের উদ্দেশ্য 'সবধরনের ভালোবাসা'-কে সেলিব্রেট করা। ভিন্ন বর্ণ, ধর্ম, সমলিঙ্গ-যাই হোক না কেন। সমাজের মধ্যে এই ধরনের 'চেতনার আলো' বিস্তারের জন্য তারা মিডিয়াকে ব্যবহার করতে চায়। দেশী সাইটে কথাগুলো মোটামুটি সরাসরি বলা। আর ছবিগুলো দেয়া রেখেঢেকে। অন্যান্য দেশের সাইটগুলোতে সব কিছু খোলাখুলিই আছে। কমেন্টে ওদের একটা ওয়াইট পেইপার-এর লিঙ্ক দিচ্ছি যেখানে ওদের মূল উদ্দেশ্য স্পষ্টভাবে বলা আছে।
.
আজকে থেকে ৩০ বছর আগে কাছে আসার গল্পের বিজ্ঞাপনগুলো সমাজ হয়তো সহজে এম্নে নিতে পারতো না। কিন্তু এখন পারছে। এলgবিt কাছে আসার গল্পও হয়তো এখন মার্কেটে একটু বাঁধা পাবে। কিন্তু এভাবে চলতে থাকলে ৫-১০ বছরের মধ্যে এগুলো নিয়েও সরাসরি ক্যাম্পেইন হবে।
.
এটাই সেক্যুলার শাসন, শিক্ষা এবং প্রতিষ্ঠানের ধর্ম। তারা সবসময় একটা নির্দিষ্ট গন্তব্যের দিকে মানুষকে নিয়ে যাবে। প্রত্যেক প্রজন্ম তাঁর আগের প্রজন্মের চেয়ে ঐ গন্তব্যের নিকটবর্তী হবে। আপনার সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম কী, আর বিসমিল্লাহ আছে না নেই - তা দিয়ে এই প্রবণতা বদলাবে না। সেক্যুলার কালচার সবসময় একমুখী। নিম্নমুখী।
.
এই সব সোশ্যাল এঞ্জিনিয়ারিং এর বিরুদ্ধে বলুন। ক্লোসআপের বিরুদ্ধে বলুন।
#Boycott_closeup
- - Asif Adnan

ছেলের গলায় ক্রুশ, মেয়ের মাথায় হিজাব। মেসেজটা কী, বলুন তো?

.
'দ্বিধাহীন কাছে আসা' অর্থ কী?
.
আল্লাহর বিধান উপেক্ষা করে-
নির্দ্বিধায় যিনা করা?
নির্দ্বিধায় কাফেরকে বিয়ে করা?
.
আচ্ছা, এই ধরনের 'দ্বিধাহীন মেসেজিং এ বেশিরভাগ সময় মেয়েটা কেন মুসলিম হয়?
.
একটা চিপস বা এ জাতীয় পণ্যের প্যাকেটে লেখা হয়েছিল 'say bismillah'। এ নিয়ে কর্পোরেট সেক্যুলারদের গ্রুপে তুলকালাম কাণ্ড। খুব খারাপ কাজ হয়েছে। ভয়ংকর সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়ানো হয়েছে। প্যাকেটের গা-থেকে পরে সেই কথা উঠিয়ে দেয়া হয়।
.
মুসলিমদের দেশে 'বিসমিল্লাহ বল' এই কথাটা বলা বিতর্কিত, আপত্তিকর। কিন্তু দশকের পর দশক ধরে, ক্লোসআপ কিংবা মোবাইল কোম্পানিগুলোর সোশ্যাল এঞ্জিনিয়ারিং - হুকআপ কালচার বা যিনা কালচারার প্রমোশন সমস্যা না। এগুলো সাহসী, ক্রিয়েটিভ মার্কেটিং।
.
এই লিবারেল বায়াসটা মিডিয়া এবং #কালচাড়াল জগতে বিল্ট-ইন। সহজাত। এই জগতের একটা নিজস্ব দর্শন আছে, আকীদাহ আছে। সেই আকীদাহতে 'দ্বিধাহীন যিনা', 'ক। ফi রকে বিয়ে' করা কিংবা এলgবিt প্রমোট করা সাওয়াবের কাজ। কিন্তু বিসমিল্লাহ বলতে বলা সমস্যা। স্কুল কিংবা কলেজের ছাত্রী হিজাব পরে ক্লাসে যাওয়া সমস্যা। কিন্তু মার্কেটিং এর জন্য হিজাবকে ব্যবহার করা, হিজাবীদের যিনায় উৎসাহ দেয়া ইনোভেইশান।
.
আমরা ফেইসবুকে অনেক সময় নন-ইস্যু নিয়ে উত্তেজিত হয়ে যাই। কোন বিষয়ে যতোটুক বলা দরকার তার চেয়ে বিশগুণ বেশি বলি। বেশিরভাগই নিজেদের মধ্যেকার তর্ক। যেটাতে আলটিমেটলি তেমন কোন পরিবর্তন আসে না। কিন্তু এই বিষয়টা কথা বলার ফায়দা আছে।
.
অনলাইনের মাধ্যমে এই ধরনের অ্যাড ক্যাম্পেইনের বিরুদ্ধে ব্যাপক জনমত তৈরি করা কঠিন না। বিশ জন এটা নিয়ে পোস্ট দিলে ২০০ জন কমেন্ট করবে। ৫-৬ জন সেলিব্রিটি লেখক লিখলে বড় বড় বক্তারাও এটা নিয়ে বলবেন। অল্প সময়ের মধ্যে লক্ষ্য মানুষের কাছে কথাটা পৌছানো সম্ভব। ক্লোসআপকে বোঝানো সম্ভব বিশাল সংখ্যক মানুষ তাদের এসব অসভ্যতা পছন্দ করছে না। এবং তাদের কলাকৌশল পরিস্কার বুঝতে পারছে। কাজটা খুব বেশি কষ্টসাধ্য না।
.
আসেন ট্রাই করি।
- - Asif Adnan

Powered by Blogger.