পোশাক কি ধর্ষণের কারণ হতে পারে? বিজ্ঞান কি বলে?

ধর্ষণের কারণ পোশাক ? বিজ্ঞান কি বলে? ধর্ষণের কারণ ও প্রতিকার

 #সত্যকথন_৪১৫



সাম্প্রতিক সময়ে ধর্ষণ মহামারী আকার ধারণ করেছে। প্রতিদিনই একাধিক নিউজ আসছে পত্রপত্রিকায়, আনরিপোর্টেড কেস তো আছেই। অশালীন ও উগ্র পোশাক ধর্ষণ করতে প্রলুব্ধ করে কিনা সেটা নিয়েও আলোচনা, তর্ক-বিতর্ক হচ্ছে। পোশাককে দায়ী করাতে অনেকে খুব প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে, গালমন্দ করছে।

মানুষ যেহেতু এখন বিজ্ঞান বা ফিজিক্যাল প্রমান নির্ভর যুক্তি মেনে নেয় বা পছন্দ করে তাই ধর্ষণে উগ্র সাজসজ্জার প্রভাব নিয়ে বিজ্ঞান আসলে কি বলে সেটা জানা দরকার। 
মোটাদাগে, ধর্ষণের ঘটনায় পোশাক দায়ী নয়, এমন কোনো স্টাডি চোখে পড়েনি, বরং নগ্নতা বা উগ্র সাজসজ্জা ধর্ষককে প্রলুব্দ করতে পারে এমন ইঙ্গিত বাহি গবেষণা আছে।
.
২০১৬ সালে 'আর্কাইভস অফ সেক্সচুয়াল বিহেভিয়ার' নামের সাইকোলজি ফিল্ডের ভালো মানের এক জার্নালে প্রকাশিত গবেষণায় দেখা দেখা গেছে, নগ্নতা ধর্ষণ না করার যে একটা নৈতিক বাধা থাকে সেটা হ্রাস করে। অর্থাৎ নগ্নতা ধর্ষণকে ইনফ্লুয়েন্স করতে পারে।
.
৪০ জন পুরুষের একটা গ্রূপের উপর গবেষণাটি করা হয়। ২০ জন করে দুই ভাগ করা হয়। সংক্ষেপে বলতে গেলে, এসব পার্টিসিপেন্টসদের সামনে তিন ধরণের গল্প পড়ে শোনানো হয়। একজন নারী নিউট্রাল ভয়েসে একটা রেপের ঘটনা, একটা সম্মতির ভিত্তিতে যৌনতার ঘটে ও একটা নরমাল নন-সেক্সচুয়াল গল্প পড়ে শোনান। গল্প চলাকালীন সময়ে তাদের সামনে নগ্ন ও পোশাকে ঢাকা দুই ধরণের নারীর ছবি ও ভিডিও দেখানো হয়।
.
ফলাফল বোঝার সুবিধার্থে কন্ডিশনগুলো আলাদা করছি:
.
১. ধর্ষণের গল্প + নগ্ন নারীর ভিডিও দেখা 
২. ধর্ষণের গল্প + কাপড়ে ঢাকা নারীর ভিডিও দেখা 
৩. সম্মতির ভিত্তিতে যৌনতার গল্প + নগ্ন নারীর ভিডিও দেখা 
৪. সম্মতির ভিত্তিতে যৌনতার গল্প + কাপড়ে ঢাকা ভিডিও দেখা 
৫. সাধারণ গল্প + নগ্ন নারীর ভিডিও দেখা
৬. সাধারণ গল্প + কাপড়ে ঢাকা ভিডিও দেখা
.
মূল আর্টিকেলে গবেষণার ফলাফলটি সংক্ষেপে এভাবে লেখা, 'Results suggested that nudity may have a disinhibitory effect on sexual arousal to non-consensual cues, but only when presented in the form of moving images.'
.
অর্থাৎ পুরুষদের 'উত্তেজনা' ১ নম্বর কন্ডিশনে সবচেয়ে বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। ধর্ষণের গল্প শুনতে শুনতে সামনে নগ্ন নারীর ভিডিও তাদের উত্তেজনা আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে যেখানে একই ধর্ষণের গল্প পোশাকে ঢাকা নারীর ক্ষেত্রে উত্তেজনা অপেক্ষাকৃত কম থাকছে। 

তাহলে কি পোশাকই একমাত্র জিনিস যার জন্য ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে? গবেষকদের এমন প্রশ্ন করা হয়েছিল, তারা বলেছে অবশ্যই একমাত্র বিষয় নয় তবে নগ্নতা ধর্ষণের ক্ষেত্রে যে মৌলিক বাধা থাকে সেটা কমিয়ে দেয় অর্থাৎ বিষয়টা নর্মালাইজ করতে সাহায্যে করে।
.
সুতরাং পোশাকের সাথে ধর্ষণের সম্পর্ক নেই, চোখ বন্ধ করে এমন গোলাবাজির আসলে কোনো ভিত্তি নেই। অবাক হলাম, তথাকথিত শিক্ষিত সমাজও পোশাক নিয়ে কথা বলাতে উত্তেজিত হয়ে উঠলো, তারা একটুও স্টাডি করলো না বিষয়টা নিয়ে? এই শিক্ষিত সমাজ নিয়ে কি করবো আমরা?
.
রেফারেন্সঃ
১। https://bit.ly/3nObJC5
২। https://bit.ly/316vRW6
৩। https://bit.ly/3dr8U53
.
.
লেখকঃ Saifur Rahman
#সত্যকথন

UNICEF USA এর রিপোর্ট।  Enayet Karim

কেন প্রায়ই মহিলা এবং মেয়ে শিশুরা নির্যাতন, নিপীড়নের শিকার হন? 

এর অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, মেয়েদের পণ্য, অতি মাত্রায় যৌণ আকর্ষণীয় হিসেবে উপস্থাপন। 

এর জন্য মিডিয়ার মেয়েদের যৌণ পন্য হিসেবে উপস্থাপন, অতি মাত্রার নগ্নতাকে এবং পোষাককে দায়ী করা হয়। 

বিভিন্ন বিজ্ঞাপন, প্রচার মাধ্যমে যা অহরহ করা হচ্ছে। 

এখন যারা মেয়েদের ওপর নির্যাতন, নিপীড়ন, ধর্ষণের মত অপরাধ সংগঠনের পেছনে পোষাক, 
অশ্লীল উপস্থাপনকে দায়ী করলেই ক্ষেপে যান, মেয়েদের দোষ দেয়া হচ্ছে, তাদের এককভাবে দায়ী করা হচ্ছে ইত্যাদি বলেন। 

তারা খোদ যুক্তরাষ্ট্রের মত দেশে করা গবেষণার ব্যাপারে কি বলবেন? যেখানে প্রায় নগ্ন হয়ে চলাকেও অধিকার মনে করা হয়। সেখানেই যদি পোষাক, উপস্থাপনকে দায়ী করা কথা আসে, তাহলে বাংলাদেশের মত একটি দেশে কি অবস্থা হবার কথা? 

বিস্তারিত, এই লিঙ্কেঃ 

https://www.unicefusa.org/stories/not-object-sexualization-and-exploitation-women-and-girls/30366?fbclid=IwAR0AhfPKECY64cT9XeAJuPT7jW5C1uvWqO_UYCDHkm0vm5XOyCjHdFfJf8k
Powered by Blogger.