Bangla Islamic Books Review And PDF Download | বাংলা ইসলামিক বই রিভিউ ও ডাউনলোড

Bangla Islamic Books Review And PDF Download | বাংলা ইসলামিক বই রিভিউ ও ডাউনলোড ২০২০


লেখক প্রকাশক PDF দিলে তখন আপনাদের কাছেও হইতো আমরা দিতে পারবো। যেহেতু তারা বইটার পিডিএফ করেনি তাই আমরা দিচ্ছি না। এটা লেখক প্রকাশকের হক নষ্ট করা ও দুনিয়াতে তাদের আর্থিক ক্ষতি করা।
বইটা ভালো এবং দরকারি তাই একদিনের বা দুই দিনের নাস্তার টাকা দিয়ে বই টা কিনেই পড়ুন প্লিজ। 


বইঃ ডাবল স্ট্যান্ডার্ড, লেখকঃ ডা শামসুল আরিফী শক্তি 

রিভিউঃ মোঃ নাজমুল হাসান

২ বছর আগের কথা।
তখনো হুমায়ন আহমেদ, সমরেশ এর বই নিয়ে আমার খুব আগ্রহ কাজ করতো!

ইসলামি বই তখনো তেমন পড়া হতো না। তবে বই এর মলাট দেখে একদিন হুট করেই পড়া শুরু করলাম ডাঃ সামসুল আরেফীন এর ডাবল স্ট্যান্ডার্ড বইটা।
এখন পর্যন্ত আমার পড়া খুব ইনফরমেটিভ বইগুলোর একটা এই ডাবল স্ট্যান্ডার্ড।

না জানা অনেক কিছু জেনেছি বইটি পড়ে।
এই বইটিকে নাস্তিক বিরোধি বই না বলে আমার মত অধমদের জন্য নতুন কিছু জানার বই বলাই শ্রেয়।

বই থেকে দুইটা অংশ জাস্ট তুলে ধরছি, দেখেন তো মস্তিষ্কের ভেতরে কোনো আলোরন সৃষ্টি হয় কিনা।
১.
"ইসলাম
এটা কোন আর্মি না, কোন উন্নত অস্ত্র না, কোন টেকনোলজি না, এটা ছিল এক লাইফস্টাইল যা পরাশক্তিদের পদানত করেছিল। আফসোস, আজ এই জীবন পদ্ধতিই মুসলিম বিশ্বের কাছে নেই।"
২.
"ধর্ম শব্দটার সাথে আমরা ইসলামকেও মিলিয়ে দিয়েছি। অথচ ইসলাম ব্যাপারটার সাথে সবচেয়ে অবিচার হলো একে ধর্ম বলা।
আর দশটা ধর্মের মতো ইসলাম 'ধর্ম' নয়।
এর অস্তিত্ব শুধু কিছু উৎসব আর প্রাত্যাহিক আচার-প্রথার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়।
এর রয়েছে পৃথক সংস্কৃতি, অর্থব্যবস্থা, সামাজিকতার আলাদা সংজ্ঞা, রাষ্ট্র পরিচালনা, আইনশাস্ত্র,সাস্থকর জীবনাচার, আন্তর্জাতিক সম্পর্কের নীতিমালা।
ব্যক্তি-পরিবার-সমাজ-দেশ-পৃথিবী কিভাবে চলবে তার সুনির্দিষ্ট নীতি আছে ইসলামের।
প্রস্রাব-পায়খানা থেকে যুদ্ধ পর্যন্ত, ঘুম থেকে রাষ্ট্র পরিচালনা পর্যন্ত স্ত্রী সহবাস থেকে বিচারকার্য পর্যন্ত সবকিছু; ২৪ ঘন্টায় যা কিছু হয় সব।
আর ধর্ম বললে নামাজ-রোজা-হজ্ব ছাড়া আর কিছুই ভাসে না মনে "
কি ভাবার মতো না ব্যাপারগুলা?
কেনো পড়বেন বইটা?
-- সত্যি বলতে এই বই পড়ার পর ইসলাম সম্পর্কে আমার আগ্রহ বহুগুনে বেড়ে গেসে।
-- এই বইটা পড়ার পর আমার প্রেকটিসিং মুসলিম হওয়ার ইচ্ছা টা সর্বপ্রথম আসছিলো!
-- এই বইয়ের দাড়ি বিষয়ক অংশ টা আমাকে সুন্নাহ অনুসারে দাড়ি রাখতে ইনস্পায়ার করসে!
** যারা এখনো দাড়ি রাখা নিয়ে কনফিউজড, এটা সুন্নাত না ওয়াজিব
তাদের কনফিউশন দূর করতে এই বইয়ের পরিপূর্ন দাড়ি: জঙ্গল নয়, ছায়াবীথি অংশটা খুব কাজে দিবে।
[ এই অংশটা কমেন্ট বক্সে দিয়ে দিচ্ছি , প্রয়োজনে দেখে নিতে পারেন ]
আল্লাহ আমাদের ইসলাম কে জানার ও মেনে চলার তৌফিক দিক।
জাযাকাল্লাহ
নোট: আনঅফিশিয়াল pdf দিয়ে লেখক বা প্রকাশনীর ক্ষতি হোক সেটা চাই না। তাই পিডিএফ দিচ্ছি না।
কারো হার্ডকপি লাগলে লকডাউনের পর যোগাযোগ করবেন!

‪পাঠকপুর ডাবল স্ট্যান্ডার্ড ২ রিভিউ প্রতিযোগিতা ২০২০‬


আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ।

সুপ্রিয় পাঠক, নিয়ম মোতাবেক প্রথমেই জিজ্ঞেস করে নেওয়া উচিত কেমন যাচ্ছে আপনাদের দিনকাল, কেমন আছেন আমরা। তবে ব্যতিক্রমের এই মৌসুমে আমরাও কিছুটা ব্যতিক্রম করে ফেললাম। জানতে চাইলাম না কেমন আছেন আপনি। লকডাউনের এই অবরোধের মধ্যে জীবনের স্বাভাবিক টিউনিং যখন বেসুরো হয়ে বুকের মধ্যে বাজছে, তার উপর রামাদ্বানের মত সময়টাতেও যখন আল্লাহর ঘর থেকে, তারাবীহ থেকে, রামাদ্বানের স্বাভাবিক উৎসবমুখর পরিবেশ থেকে আমাদের বঞ্চিত থাকতে হচ্ছে তখন কিভাবে আমরা ভালো থাকতে পারি, বলুন? শরীরটা হয়তো আল্লাহর দয়ায় এখনো রোগমুক্ত, কিন্তু মনটা তাঁর ঘরে না যেতে পারার বেদনায় জর্জরিত। মনের আকাশ আজ পাংশু হয়ে আছে রামাদ্বানের চিরাচরিত সুবাস গায়ে মাখতে না পেরে। আহ! এমনটাও কি হবে বলে ভেবেছিলাম কেউ?

কিন্তু মুমিনের চরিত্রে ভেঙে পড়া বলে কিছু থাকতে পারে না। তাই আমরাও ভেঙে পড়বো না। আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদেরকে জানিয়ে গেছেন মুমিনের জন্য সুখ আর দুঃখ, দুটো অবস্থাই কল্যাণকর আর এই বিস্ময়কর বিষয়টা মুমিন ছাড়া আর কারো ক্ষেত্রেই ঘটে না। সেই সাথে তাঁর যবান থেকে নিঃসৃত পবিত্র বাণী থেকে আমরা এও জানতে পেরেছি যে, এসব মহামারী কেন আসে। আল্লাহর কালাম থেকেও আমরা জানতে পারি এসব বিপর্যয় আমাদের হাতের কামাই ছাড়া আর কিছু নয়। অতএব বেশি তাওবা, ইস্তিগফার, কুরআন তিলাওয়াত আর সালাত - এই হোক আমাদের কর্মসূচি। কিন্তু আরো একটা বিষয় বাদ পড়ে যাচ্ছে না তো?

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদেরকে সতর্ক করেছেন, খুব গুরুতরভাবে সতর্ক করেছেন। কি নিয়ে জানেন? সৎ কাজের আদেশ আর অসৎ কাজের নিষেধ ছেড়ে দেবার ব্যাপারে। কেন, কেন, ছেড়ে দিলে কি হবে?

কি হবে? ছোট্ট কিন্তু ভয়ংকর একটা জবাব: “আমাদের দু’আ আল্লাহ কবুল করবেন না!”
আজ আমরা সৎ কাজের আদেশ করি না। খণ্ডিত আকারে কিছু করলে অসৎ কাজের নিষেধ থেকে তো হাত একেবারেই গুটিয়ে নিয়েছি। তাই ভাই এবং বোনেরা, যদি এই বিপদ থেকে মুক্তি চাই তো এই আমলের পুনর্জাগরণ করা চাই তা যেভাবেই হোক। নয়তো আমাদের তাওবা ইস্তিগফার যদি কবুল না হয়? কি করবো আমরা?

কিন্তু এই লকডাউনের মধ্যে কিভাবে এটা সম্ভব? সম্ভব, পাঠক, খুব সম্ভব! অনেক সময়ই তো আমরা অনলাইনে ব্যয় করি। আমরা চাইলেই সময়টা ব্যয় করতে পারি ক্রিয়েটিভ ওয়েতে। আপনাদের পাঠকপুর গ্রুপ সেই সুযোগটাই করে দিতে যাচ্ছে খুব চমৎকার একটা উপায়ে।

পাঠকপ্রিয় লেখক ডাক্তার শামসুল আরেফীন শক্তির সর্বশেষ প্রকাশিত বই “ডাবল স্ট্যান্ডার্ড ২.০” এর উপর আমরা আয়োজন করতে যাচ্ছি একটি রিভিউ প্রতিযোগিতার। বইটি ইতিমধ্যেই পাঠক মহলে কুড়িয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা। লেখক তাঁর স্বভাবসিদ্ধ চনমনে লেখনী দিয়ে আমাদের সামনে তুলে ধরেছেন বর্তমান যুগের কুফরের বড় এক হাতিয়ার নারীবাদের বাস্তবতা আর নারীকে নিয়ে অসাধারণ কিছু আলোচনা। ব্যবচ্ছেদ করেছেন অনেক সন্দেহ সংশয়ের, চেষ্টা করেছেন এই ব্যাপারে ইসলামের আদি রূপ তুলে ধরার।

পাঠক, বইটির কন্টেন্ট নিয়ে আপনার সুচিন্তিত মন্তব্য এবং বইটিকে ঘিরে আপনার ভালোলাগা-মন্দলাগার সমন্বয়ে যদি চটপট একটা রিভিউ লিখে ফেলতে পারেন তাহলে আল্লাহর ইচ্ছায় হয়তো আপনার এই রিভিউ আপনারই কোন বন্ধু বা বান্ধবীর হিদায়াতের উসীলা হয়ে উঠতে পারে। তাদের অজান্তেই এটা তাদের জন্য আমর বিল মা’রুফ ওয়া নাহী ‘আনিল মুনকারের কাজ হয়তো করে বসবে। হয়তো রিভিউ পড়ে আগ্রহী হয়েও সেও হাতে তুলে নেবে বইটি, বহুবছরে গড়ে ওঠা মিথ্যার প্রাসাদ চুন চুন হয়ে ধ্বসে পড়বে, হিদায়াতের মিছিলে আমরা পাবো আরো একটি নতুন মুখ। আমরা তো আল্লাহর কাছে উত্তম আশাই পোষণ করি।

রামাদ্বানের মধ্যে আয়োজন করায় পুরো প্রতিযোগিতার মধ্যেই আমরা চেয়েছি নতুন এবং গতানুগতিক ধারার বাইরে ভিন্ন একটা আবহ নিয়ে আসতে। আর তাই, একক বইকেন্দ্রিক কোন রিভিউ প্রতিযোগিতা হিসেবে বিজয়ীদের জন্য পুরস্কারের পরিমাণটাও যেমন বেশি থাকবে তেমনি রিভিউ লেখার নিয়মকানুনেও থাকছে সুনির্দিষ্ট কিছু নীতিমালা।

১। রিভিউ হতে হবে টু দ্যা পয়েন্ট, যথাযথ। কোন বিষয়েই বাড়িয়ে বা কমিয়ে লেখা যাবে না।
২। সুনির্দিষ্ট কিছু পয়েন্টে পুরো রিভিউ ভাগ করে নিলে ভালো হয়। পয়েন্টগুলো কি কি থাকবে সে বিষয়ে আমরা পাঠকদের স্বাধীনতা দেওয়াটাই পছন্দ করছি।
৩। প্রশংসা বা নিন্দা বা অন্য যেকোন বিষয়ে যতবেশি গঠনমূলক বক্তব্য আসবে রিভিউ হিসেবে সেটা গ্রহণযোগ্যতা ততই বেড়ে যাবে।
৪। বড় রিভিউ থেকে নিরুৎসাহিত করছি আমরা। কেননা বড় রিভিউ সাধারণত অনেকেই পড়েন না এবং রিভিউ দেওয়ার উদ্দেশ্য হল মানুষকে পড়ানো যাতে সে বই সম্পর্কে একটা মোটামুটি আইডিয়া পেয়ে যেতে পারে। তাই যতটুকু লিখলে সেই আইডিয়াটুকু অন্যকে দেওয়া যায় ততটুকুই লেখার অনুরোধ থাকলো। তবে সমালোচনা বা যৌক্তিক কোন ইস্যুতে লেখার কলেবর বড় হলে সেটা অবশ্যই গ্রহণযোগ্য।
৫। রিভিউর সাথে বইয়ের ছবি যুক্ত করা বাধ্যতামূলক। কালেক্টেড বা নিজে তোলা, যেকোন প্রকারের ছবিই গ্রহণযোগ্য হবে। তবে আমরা অগ্রাধিকার দিচ্ছি নিজে ছবি তোলাকেই।
৬। রিভিউ চলবে ২৪ রামাদ্বান অর্থাৎ ১৮ মে পর্যন্ত। এর মধ্যেই আপনাদেরকে লিখে ফেলতে হবে এবং সুন্দর করে সেটা আমাদের পাঠকপুর গ্রুপে পোস্ট করে দিতে হবে। সেই সাথে রিভিউ শুরু করার পূর্বে #পাঠকপুর_ডাবল_স্ট্যান্ডার্ড_২_রিভিউ_প্রতিযোগিতা_২০২০ হ্যাশট্যাগটি অবশ্যই যুক্ত করে নিতে হবে। এটা ছাড়া আপনার রিভিউ প্রতিযোগিতার জন্য কাউন্ট হবে না।
৭। গ্রুপে পোস্ট করার পর হ্যাশট্যাগ সহ আপনার রিভিউটি কপিপেস্ট করে আপনার টাইমলাইনে পোস্ট করতে হবে। অবশ্যই পোস্টের প্রাইভেসি পাবলিক রাখতে হবে, নয়তো আমরা সেটা খুঁজে পাব না।

এবার চলে আসি পুরস্কারের বিবরণীতে। সর্বোচ্চ তিনজনকে নির্বাচিত করা হবে সেরা রিভিউদাতা হিসেবে এবং তাদের পরেও আরো তিনজনের জন্য থাকছে সমর্পণের পক্ষ থেকে ভালোবাসা। অবশ্য আমরা শুকনো ভালোবাসা নয়, আসল ভালোবাসাটাই দেব, চিন্তা নেই! চলুন দেখে নেওয়া যাক কি কি ভালোবাসারা অপেক্ষা করছেন!

১ম পুরস্কার: ৮০০ টাকা সমমূল্যের বই।
২য় পুরস্কার: ৬০০ টাকা সমমূল্যের বই।
৩য় পুরস্কার: ৫০০ টাকা সমমূল্যের বই।

এছাড়া বাকি তিনজনের প্রত্যেকে পাবেন ২০০ টাকার সমমূল্যের বই, ইনশাআল্লাহ। উল্লেখ্য বিজয়ীদের বই নির্বাচন করতে হবে সমর্পণ থেকে প্রকাশিত বইগুলোর মধ্য থেকেই।
তাহলে চলুন, নেমে পড়া যাক। কোয়ারেন্টাইনের এই সময়টাকে কুরআন টাইম বানানোর পাশাপাশি দ্বীনের দাওয়াহ আর বিজয়ের ক্ষেত্র তৈরির মাস বানানোর কাজেও উঠেপড়ে লেগে যাই আমরা। কে বলতে পারে, কোন কাজটা আল্লাহর দরবারে কবুল হয়ে যাবে আর কোন কাজের জন্য তিনি আমাদেরকে আগুন থেকে নাযাত দিয়ে দেবেন। আমাদের মালিকের কাছে তো আমাদের কোন কাজই ফেলনা হয়ে পড়ে থাকে না!
-Nafis Nawar
Powered by Blogger.