মরে গেলেই ১০ খুন মাফ? মুরতাদ নাস্তিক মরলেও দোয়া করতে হবে? ঘৃণা করা বা বিপক্ষে বলা যাবেনা?

মরে গেলেই ১০ খুন মাফ? মুরতাদ নাস্তিক মরলেও দোয়া করতে হবে? ঘৃণা করা বা বিপক্ষে বলা যাবেনা? 


১.
স্টিভেন কোভি তার সেভেন হ্যাবিটস অফ হাইলি এফেক্টিভ পিপল এ একটা দৃশ্য কল্পনা করতে বলেছিলেন - আমি মারা গেছি, আমার জানাজাতে লোকেরা আসল - তাদেরকে আমার সম্পর্কে কথা বলতে বললে তারা কী বলবে? আমি কী চাই - তারা কী বলুক।
ওই সময় আমি যা শুনতে চাই আমি যেন এখন সেটা নিয়ে কাজ করি।
বাংলাদেশের একজন বুদ্ধিজীবি মারা গেল, আমার নিউজফিডে কাউকে দেখলাম না ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন দু'আটা পড়তে।
এই দু'আটা মুসলিমদের আল্লাহ কুরআনের আয়াত অনুসারে পড়তে বলেছেন বিপদে পড়লে। মৃত্যু একটা বিপদ, তাই আমরা মানুষের মৃত্যুতে এই দু'আটা পড়ি।
একজন মানুষ যার নাম রাম-শ্যাম-যদু বা মধু নয়, বরং নাম দেখে মুসলিম ঘরের সন্তান বলে মনে হয় তার মৃত্যুতে 'ওপারে ভালো থাকবেন' বলা যাচ্ছে, দু'আ কেন আসছে না?
এই ব্যাপারটা বুঝতে হলে স্টিভেন কোভির দ্বিতীয় অভ্যাসটার দিকে তাকাতে হবে - কেউ যদি চায় তার মৃত্যুতে মানুষ তার জন্য দু'আ করুক তাকে তেমন একটা জীবন গঠন করতে হবে।
আর যদি সে সারা জীবন আল্লাহর বিরুদ্ধাচারণ করে থাকে তাহলে তার মৃত্যুর পরে মানুষের কোনো ভাববিকার হবে না। কেউ নির্লিপ্ত থাকবে, কেউ বদ-দু'আ করবে।
কেউ কেউ ইন্না লিল্লাহ হয়তো পড়বে কিন্তু সেটা রমদান মাসে টিভি উপস্থাপিকাদের মাথায় কাপড় দেওয়ার মতো - আমরা জানি এটা সস্তা একটা ট্রিক - পাবলিক সেন্টিমেন্ট নিয়ে খেলা করা; না বললে, না করলে কেমন জানি দেখায় এই জন্য বলা বা করা।
২.
সূরা আল ইনসানের ৯ নম্বর আয়াতে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা'আলা মুমিনদের একটা চমৎকার কথা কোট করেছেন। মুমিনরা যখন কাউকে খাবার দেয় তারা বলে, " আমরা তোমাদের কাছে প্রতিদান চাই না, ধন্যবাদও চাই না।"
এই সূরার ২২ নম্বর আয়াতে আল্লাহ আযযা ওয়া জাল্লা বলেছেন, মুমিনদের প্রচেষ্টাগুলোর জন্য তাদের পুরষ্কার দেওয়া হবে এবং তাদের প্রচেষ্টাগুলোকে কৃতজ্ঞতার সাথে গ্রহণ করা হবে।
আল্লাহর একটি নাম আশ-শাকুর, তিনি কৃতজ্ঞ। কৃতজ্ঞ তো মানুষ হবে। কিন্তু আল্লাহ যিনি মানুষকে দেন, খালি দেন - বিনিময় ছাড়াই দেন তিনি কীসের বিনিময়ে কৃতজ্ঞ হবেন?
আসলে এটা আল্লাহ আশ-শাকুরের মহানুভবতা যে তিনি বান্দার কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপনটাও কৃতজ্ঞতার সাথে গ্রহণ করেন এবং অতি অল্প কাজের অকল্পনীয় বিনিময় দান করেন।
কিন্তু মানুষের দিকে তাকান। একটা মানুষ সারা জীবন দাসবৃত্তি করে গেল। মরার পরে তার পরিবার এ কথাটুকু বলার পেল না যে আসলে কোন রোগে লোকটা মারা গেল।
মানুষের দাসত্ব করার ক্ষতিটা চিন্তা করে দেখেন - আখিরাতে তো কিছু দিতে পারবে না-ই, দুনিয়াতেও বিপদে পড়লে সে প্রভুভক্ত দাসটিকে ফেলে নিজের জান বাঁচাতে চেষ্টা করে।
৩.
বিধর্মীর লাশ দেখে রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দাঁড়িয়েছিলেন - সম্মান দেখিয়েছেন। লোকটা জাহান্নামী - তার জাহান্নামে সে যাবে, রসুল তাও সৌজন্যতাটুকু দেখিয়েছেন। আবার এই দয়ার নবীই মুসলিম কিন্তু ঋণী ব্যক্তির জানাজা পড়েননি।
আমরা ছোট থেকে বড় হওয়ার সময় যাদের সাংষ্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে দেখেছি, বুদ্ধিজীবিদের নেতা হিসেবে দেখেছি, যাদের লেখা-কথা বলার ধরণকে আমরা অনুকরণ করতে চেয়েছি এরা অনেকেই নিজেকে আল্লাহর দাস হিসেবে স্বীকার করে না।
এদের কেউ ভারতের ভৃত্য, কেউ কোনো দলের দাস, কেউ শয়তানের পূজারী কেউ বা নিছক স্বীয় প্রবৃত্তির গোলাম। এরা সাধারণ অমুসলিম না। এরা নিজেরাই কারো না কারো আইডল - উপাস্য অনুবাদ না করলেও অনুসরণীয় অনুবাদ করতেই পারেন।
এদের বিরুদ্ধে তাই মুখ খোলা উচিত, কথা বলা উচিত। জীবিত অবস্থায় আমরা এদের কাছে দাওয়াহ দেব, আমাদের লেখা বইগুলো পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করব। অন্তত কুরআনের একটা অনুবাদ।
কিন্তু তারপরেও যদি এদের পরিবর্তন না হয় তাহলে অন্তত ব্যক্তিগত বলয়ে বলতে হবে। সোশাল মিডিয়া বা ব্যক্তিগত ব্লগে এদের বিরুদ্ধে লেখা উচিত। মরে গেছে, ছেড়ে দেন - এই কথাটা এদের জন্য প্রযোজ্য না। এরা মরে গেছে, কিন্তু এরা যা লিখে গেছে, যা প্রচার করে গেছে সেগুলো তো এখনও আছে!
বাংলাদেশের মূলধারার মিডিয়া - টিভি, রেডিও এবং পত্রিকা এত বছর ধরে নাস্তিক ভাবাপন্ন, ইসলামি বিদ্বেষী মানুষদের মিথ্যা মহত্ত্বের যে কাঁচের প্রাসাদ বানিয়েছে তা ভাঙা জরুরি।
মানুষ জেনে রাখুক দুনিয়া এবং আখিরাতের সকল সম্মান আল্লাহর বান্দাদের জন্য। আর শয়তানের দলের লোকেরা আখিরাতে তো বটেই দুনিয়াতেও লাঞ্চিত এবং অপমানিত হবে।
আল্লাহ আযযা ওয়া জাল্লা আমাদের তাঁর দ্বীনের দিকে, তাঁর দাসত্বের দিকে ফিরে আসার সুযোগ দিন। আল্লাহর আযাব অত্যন্ত ভয়ংকর - তা থেকে তিনি যেন আমাদের রক্ষা করেন। তিনি যেন আমাদের সবাইকে, সবাইকে মুসলিম হিসেবে মৃত্যুবরণ করার সৌভাগ্য দান করেন।
Sharif Abu Hayat Opu
মরে গেলেই ১০ খুন মাফ? মুরতাদ নাস্তিক মরলেও দোয়া করতে হবে? ঘৃণা করা বা বিপক্ষে বলা যাবেনা? মরে গেলেই ১০ খুন মাফ? মুরতাদ নাস্তিক মরলেও দোয়া করতে হবে? ঘৃণা করা বা বিপক্ষে বলা যাবেনা? Reviewed by Dr.Mira Hasan on May 16, 2020 Rating: 5
Powered by Blogger.