মুসলিম নাকি মুনাফিক ? জাতীয়তাবাদী জাহেল অদ্ভুত মুসলিমদ

মুসলিম নাকি মুনাফিক ? জাতীয়তাবাদী জাহেল অদ্ভুত মুসলিমদ- সাজ্জাদুর রহমান শাওন



আজকাল অদ্ভুত এক প্রকার মুসলিমদের দেখা যায় । যাদের সামনে যখন মুসলিম উম্মাহর দূর্দশা তুলে ধরা হয় , তাদের চোখ গুলো বিস্ময়ে ভরে যায় । তাদের অন্তর এই সত্য গুলোকে বিশ্বাস করতে চায় না। কেননা, হলিউড , ভলিউড আর খেলার ফাকে তাদের এই সময় হয়ে উঠে না তারা উম্মাহর খবর নিবে। উম্মহর জন্য নিজেদের চিন্তাকে কাজে লাগাবে। তাদের চিন্তার জগৎ তো নিজেকে ঘিরেই । এরা তো সব সময় "অর্থহীন কথা বার্তায় নিমোজ্জিত থাকে "আর "ভোগ বিলাসে মত্ত থাকে আর চতুষ্পদ জন্তুর মতো খাওয়া-দাওয়া করে" । যখনি এদের সামনে উম্মাহর দূরাবস্থার কথা বলা হয় এদের অন্তর গুলো বিষিয়ে উঠে । এদের অন্তর গুলো এতটাই মৃতপ্রায় দে দিবালোকের মত সত্য ও তাদের কাছে মিথ্যে মনে হয় ।

.

আরেক দলের অবস্থা তো আরো করুন । তারা মুসলিম উম্মাহ শব্দটাকে ভুলে বরং নিজের পিতার লজ্জাস্থান কামড়ে বসে আছে । এদের সামনে যখন শাম, আফগান , ইরাক , ফিলিস্থিন , মালি , ইয়েমেনের মুসলিমদের কথা বলা হয় এরা জাহেলদের মত বলে উঠে "নিজের দেশের লোক খোজ নাই , আসছে কোথাকার কোন !" অথচ এরা জানে না, কিংবা জানলেও মানতে চায় না। ইসলাম এই জাতীয়তাবাদের সীমারেখার উর্দ্ধে । সমগ্র মুসলিম উম্মাহ এক দেহের সমতুল্য । ইসলামের ভালোবাসা ও ঘৃণার মাফকাঠি হচ্ছে "ইমান এবং কুফর" আল ওয়ালা ওয়াল বারাহ । আমি বাংগালি মুসলিম বা আরব মুসলিম এই ধরনের বাক্যকে ইসলাম অস্বিকার করে । ইসলামের একমাত্র পরিচয় হচ্ছে , আমি মুসলিম ।দুনিয়ার যেই প্রান্তেই মুসলিম আক্রান্ত হবে আমার অন্তর ব্যাথিত হবে । তাকে সাধ্যমত সাহায্য করা আমার কতব্য হয়ে দাঁড়াবে । যদি তা না হয় তাহলে বুঝতে হবে আপনার ইমানের মধ্যে সমস্যা ঢুকে পড়েছে । প্যারালাইসিস হয়ে গিয়েছে আপনার । আপনার চিকিৎসা প্রয়োজন ।

.

কাজেই যাদের অন্তরে এই ব্যাধি রয়েছে , তাদের কে বলব হলিউড বলিউড আর ক্রিকেট কে রেখে একটূ মাথা তুলে তাকাও । বন্ধুদের সাথে অর্থহীন কথা বার্তাকে ত্যাগ করে , লম্বা একটা নিশ্বাস নাও । এরপর কোরআন খুলে দেখ , আল্লাহ তোমাকে কি বলছে ,

মুহাম্মদ আল্লাহর রসূল এবং তাঁর সহচরগণ কাফেরদের প্রতি কঠোর, নিজেদের মধ্যে পরস্পর সহানুভূতিশীল। আল্লাহর অনুগ্রহ ও সন্তুষ্টি কামনায় আপনি তাদেরকে রুকু ও সেজদারত দেখবেন। তাদের মুখমন্ডলে রয়েছে সেজদার চিহ্ন । তওরাতে তাদের অবস্থা এরূপ এবং ইঞ্জিলে তাদের অবস্থা যেমন একটি চারা গাছ যা থেকে নির্গত হয় কিশলয়, অতঃপর তা শক্ত ও মজবুত হয় এবং কান্ডের উপর দাঁড়ায় দৃঢ়ভাবে-চাষীকে আনন্দে অভিভুত করে-যাতে আল্লাহ তাদের দ্বারা কাফেরদের অন্তর্জালা সৃষ্টি করেন। তাদের মধ্যে যারা বিশ্বাস স্থাপন করে এবং সৎকর্ম করে, আল্লাহ তাদেরকে ক্ষমা ও মহাপুরস্কারের ওয়াদা দিয়েছেন।“- সুরাহ আল ফাতহ

একটু হাদিস সময় করে হাদিস গুলোকে বোঝার চেস্টা করো ,

আবূ নুঁআয়ম (রাঃ) নুমান ইবনু বশীর (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ তুমি মু’মিনদের পারস্পরিক দয়া ভালবাসা ও সহানূভূতি প্রদর্শনে একটি দেহের ন্যায় দেখতে পাবে। যখন দেহের একটি অঙ্গ রোগে আক্রান্ত হয়, তখন শরীরের সমস্ত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ রাত জাগে এবং জ্বরে অংশ গ্রহণ করে। – বুখারী শরীফ (ইফা:) ৫৫৮৬

হাসান ইবনু আলী খাল্লাল প্রমুখ (রহঃ) …… আবূ মূসা আশআরী রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, এক মু’মিন আরেক মু’মিনের জন্য ‘ইমারতের’ ন্যায় একটি ইট আরেকটিকে শক্তি যুগিয়ে থাকে। – জামে তিরমিজী (ইফাঃ) ১৯৩৪

আহমাদ ইবনু মুহাম্মদ (রহঃ) …… আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমরা একজন তার ভাইয়ের জন্য আয়না স্বরূপ। তার মাঝে যদি সে কোন দাগ দেখতে পায় তবে যেন তা দুর করে দেয়। – জামে তিরমিজী (ইফাঃ) ১৯৩৫

হে জাতীয়তাবাদ নিয়ে পড়ে থাকা কুয়োর ব্যাঙ এরা একটু নিজেদের চিন্তাকে প্রশস্ত করো , দেখো রাসুল (সঃ) কি বলছে,

, ''যে জাতীয়তাবাদ তথা আসোবিয়্যাহর জাহেলী আহবানের দিকে মানুষকে ডাকে সে যেন তার পিতার লজ্জাস্থান কামড়ে ধরে পড়ে আছে (তাকে ছাড়তে চাইছে না)।" এরপর রাসূলুল্লাহ (সা) বলেন, "এবং এ কথাটি লুকিয়ে রেখো না (অর্থাৎ বলার ক্ষেত্রে কোনো লজ্জা বা অস্বস্তিবোধ করো না)।"[মুসনাদে আহমাদ -২১২৩৬]

.

"লোকেদের উচিত হল তারা যেন তাদের জাতি নিয়ে গর্ব করা ত্যাগ করে, কারণ তা জাহান্নামের আগুনের কয়লাগুলোর মধ্যে একটি কয়লা। যদি তারা তা পরিত্যাগ না করে তবে আল্লাহ্‌ তাদেরকে সেই নিচু কীটগুলো থেকেও নীচ করে দেবেন যারা মল-বর্জ্যের মধ্যে নিজেরাই নিজেদের ঠেলে দেয়।"

[আবু দাঊদ, তিরমিযী]

.

এরপরেও যাদের অন্তর গুলো মৃতপ্রায় , যারা বিশ্বাস করতে চায় না , যারা দেখতে চায় মুসলিমদের বেইজ্জতি , আবু গারিব আর গুনান্তেনামোর কারাগারে আফিয়াদের গনধর্ষন । যারা জানতে চায় না ১৪ বছরের আবির আল জানাবির উপর মার্কিন কুকুরদের পাশবিক নির্যাতন আর আগুনে পুরিয়ে হত্যার কাহিনি । যারা জানতে চায় না শান্তিকামি যুদ্ধাপরাধী বারাক ওবামার মুসলিমদের উপর চালনো ড্রোন হামলা। ইরাকি শিশুদের আর্তচিৎকার , সিরিয়ান বোনদের আহাজারি । আর দুনিয়ার বুকে মুসলিমদের উপর চালানো কুফফারদের ম্যাসাকার আর মিডিয়া সন্ত্রাস । তাদের বলব তোমরা ঘুমিয়ে থাকো । তোমরা ঘুমিয়ে থাকো সেই পর্যন্ত যতক্ষন না তোমার ঘরের মায়েদের উপর এই অবস্থা আসে , যতক্ষন না তোমার উপরই আগ্রাসন আসে । কিংবা আল্লাহর পাকরাও আসার আগ পর্যন্ত !

যারা মনে করেন , এই নির্যাতিত উম্মাহর ব্যাপারে জানা ও জানানো আমাদের দায়িত্ব তারা এই পেজ গুলো ফলো করতে পারেন ইনশাআল্লাহ্‌

Powered by Blogger.