আপনার ত্বকের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর কিছু রূপচর্চার উপাদান [আপনি এগুলো ইউজ করেন না তো? ]

আপনার ত্বকের জন্য  মারাত্মক ক্ষতিকর কিছু রূপচর্চার উপাদান 

ক্ষতিকর কিছু রূপচর্চার উপাদান

একটা প্রবাদ আছে – প্রথমে দর্শনধারী পরে গুণ বিচারী। আমাদের সমাজে এটা এখন ১০০% সঠিক। তাইতো সৌন্দর্যের  বা রূপের জন্য অনেক বেশি কষ্ট করাটা এখন আর নতুন কিছু নয়।

 যুগে যুগে ধরে চোখকে আকর্ষণীয় করে ওঠার জন্য নারীপুরুষ উভয়েই অবলম্বন করেছে অনেক রকম পন্থা। বর্তমান সময়েও অনেকে সময় এবং টাকা ব্যয় করেই সৌন্দর্যের দেখা পান। 

কিন্তু এতে যে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে তা কি আমরা জানি ? আমাদের চোখে নির্দোষ যেসব সৌন্দর্যচর্চার প্রক্রিয়া, সেগুলোই এখন হয়ে উঠতেছে স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বস্তু। 

এমন কি প্রাণঘাতী রোগ হয়ে যাওয়াটাও এখন আর অস্বাভাবিক কিছু নয়। যেমনঃ

১। ট্যাটু
ট্যাটু মূলত ওয়েস্টার্ন বা উরোপীয়ানদের ফ্যাশন হলেও এখন আর তাদের মাঝে সিমাবদ্ধ নেই। ট্যাটু করানোর ফলে ত্বকে ইনফেকশন হবার প্রবণতা থাকে অনেক বেশি থাকে। এই ট্যাটু করালে দেখা দিতে পারে অ্যালার্জি এর মত কঠিন সমস্যা। এ ছাড়াও ট্যাটু করানোর ফলে আশঙ্কা থাকে হেপাটাইটিস সি হওয়ার। এবং এটি ইসলাম মতে হারাম। 

২। বোটক্স
ত্বকের ভাঁজ এবং কুঞ্চন দূর করার জন্য খুব তাড়াতাড়ি বোটক্স ইনজেকশনের শরণাপন্ন হন একটু বয়সী মানুষেরা। এতে করে চেহারা থেকে বয়সের ছাপ মুছে গেলেও থেকে যায় স্বাস্থ্যঝুঁকি অনেক অংশে। 

আরো পড়ুনঃ  চুলের যত্ন নেওয়ার উপায় 

এসব ইনজেকশন ব্যবহারের ফলে দেখা দিতে পারে অনেক রোগ, যেমনঃ ইনজেকশন দেওয়া অংশে ব্যাথা এবং কালচেভাব, মাথাব্যাথা, বমিভাব, সাময়িক পেশি দুর্বলতা ছাড়াও অনেক রোগ। 

অনেক সময় এই ইনজেকশনের প্রভাব সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়তে পারে এবং শ্বাসকষ্টও হতে পারে, এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তবে এটা বেশ দুর্লভ।


৩। কন্ট্যাক্ট লেন্স
চোখ বড় করে দেখায় জন্য অনেক এ ব্যবহার করেন কন্ট্যাক্ট লেন্স। দৃষ্টিশক্তির সমস্যা থাকলে চশমা পরার চাইতে অনেক এ কন্ট্যাক্ট লেন্স ব্যবহার করাকে ফ্যাশনেবল মনে করেন। 

কিছু লেন্স আছে যেগুলো পরলে চোখের মনি খুব বেশি বড় মনে হয়। ফ্যাশনেবল এসব লেন্স বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে আমাদের তরুণ সমাজের কাছে।

কিন্তু এই লেন্স ব্যবহারের ফলে চোখ তো ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেই, তার পাশাপাশি অন্ধত্বও অস্বাভাবিক কিছু নয়। তাই আমাদের সবার উচিত এসব কন্ট্যাক্ট লেন্স এড়িয়ে চলা।


→ বাংলা সেক্স নিয়ে কিছু কথা ( মেয়েদের ব্যাপারে ছেলেদের জন্য)
৪। ব্লিচ ক্রিম
আমরা অনেকে ব্লিচ ক্রিম ব্যবহার করি। ত্বক ফর্সা করার ব্লিচ ক্রিমগুলোতে বেশিরভাগ সময়েই থাকে অনেক উচ্চ মাত্রায় পারদ।

পারদ ব্যবহারের কারণ হলো তা ত্বকের রঙ গাড় করে দেওয়া মেলানিনের উৎপাদন বন্ধ করে দিতে সাহায্য করে। কিন্তু পারদযুক্ত এসব প্রসাধনী ব্যবহার করতে থাকলে হতে পারে কিডনি এবং স্নায়ুতন্ত্রের স্থায়ী সমস্যা। 

এছাড়াও গর্ভের শিশু এবং ছোট বাচ্চাদের মস্তিষ্কের বিকাশ বাধাগ্রস্ত করতে পারে পারদ। বিভিন্ন ক্রিমের লেবেলে মারকিউরাস ক্লোরাইড, ক্যালোমেল, মারকিউরিক, মারকিউরিও বা মার্কারি লেখা থাকলে সেই ক্রিমে আছে পারদ এবং তা ব্যবহার করা আপনার আমার সবার জন্য ক্ষতিকর।

৫। চুল স্ট্রেইট করার বিভিন্ন কেমিক্যাল
চুল স্ট্রেইট করা এখন ফ্যাশন। কোঁকড়া বা ঢেউ খেলানো চুলকে একেবারে সোজা করে ফেলার জন্য যেসব স্ট্রেইটেনিং কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয় এমন কিছু কেমিক্যাল হতে পারে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এগুলোতে থাকতে পারে আশঙ্কাজনক মাত্রার ফরমালডিহাইড। এসব পণ্যের লেবেলে অনেক সময়ে ফরমালডিহাইড মুক্ত বলে দাবি করা হলেও আসলে তা কতটুক ফরমালডিহাইড মুক্ত তা নিয়ে সন্দেহ থাকে।
উৎস: লাইভসায়েন্স 
Powered by Blogger.