ওরাল সেক্স এর কারনে মুখে ক্যানসার এর সংখ্যা বাড়ছে

ওরাল সেক্স এর কারনে  মুখে ক্যানসার এর সংখ্যা বাড়ছে।ওরাল সেক্স এর ক্ষতিকর দিক। 


ওরাল সেক্স এর কারনে  মুখে ক্যানসার এর সংখ্যা বাড়ছে

  1. মুখের ক্যান্সার এর লক্ষণ
  2. মুখের ঘা ক্যান্সার
  3. জিভে ক্যান্সার
  4. মুখের ভিতর ঘা
  5. ওরাল সেক্স কি?
দিন দিন আমরা ইন্টারনেট এর কারনে মানুষ থেকে অমানুষে পরিণত হচ্ছি।
ধর্ষণ এর ঘটনা তো সাধারন ব্যাপার হয়ে গেছে।

নেট এর নীল ছবি দেখে ওরাল সেক্স বা মুখ দিয়ে করা সেক্স এর কারনে আপনার মুখ/ গলায় ক্যানসার এর সম্ভাবনা বাড়ছে বলে ঘোষণা দিয়েছে গবেষকরা।
সঙ্গির মুখে  হিউমান প্যাপিলোমা ভাইরাস থাকলে আপনার ক্যানসার হতে পারার সম্ভাবনা বেশি।
হিউমান প্যাপিলোমা ভাইরাস মূলত ভেজা  অংশে থাকে বলে জানি।
স্বাভাবিক ভাবেই মুখ ভেজা স্থান আর এখানে যে হিউমান প্যাপিলোমা ভাইরাস থাকবে।
আর  একারনেই ওরাল সেক্স ক্ষতিকর।

শুধু ক্যানসার না ,ওরাল সেক্স এর কারনে মুখে অন্যান্য চর্ম রোগ ও বাহিত হয়।
আমাদের ভুলে গেলে চলবেনা নীল ছবির নায়িকারা টাকার জন্য এসব করে।
এসব ধরন মিলনের জন্য মোটেও স্বাভাবিক কোন মাধ্যম না। আমাদের নারীরা এতে অভ্যস্ত না তবুও দিন দিন যুবক দের মাঝে নীল ছবি থেকে চাহিদার জন্য নারীরা বাধ্য হচ্ছে এসব করতে।
দিন শেষে ক্ষতি আপনাদের দুই জনেরই। আর লাভ হচ্ছে পর্ণ মুভির এবং হাসপাতাল , ডাক্তার, মেডিসিন কোম্পানির।


কী করে বুঝবেন বিপদ হয়েছে ?
চিকিত্‍সকদের মতে, কিছু উপসর্গ দেখলেই সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। ওরাল সেক্সের অভ্যাস থাকার পরেও যদি খাবার ও ঢোক গিলতে কষ্ট হয়, কাশিতে রক্ত থাকে, গলায় ব্যথাহীন মাংসপিণ্ড হয় বা গ্ল্যান্ড ফোলে, এখনই সতর্ক হন। নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। প্রয়োজনে তিনি ক্যানসার বিশেষজ্ঞের কাছে পাঠাবেন।

পর্ণ ও মাস্টারবেট থেকে বেচে থাকার উৎসাহ মূলক পোস্ট

আলহামদুলিল্লাহ।
আমার বয়স ২৬ চলছে......

এই ১৭ দিন বিরত থাকার মাধ্যমেই আমার শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন দেখতি পাচ্ছি। এজন্য মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি। এই কয়েক বছর হস্তমৈথন ও হারাম কাজের কারনে আমার অনেক শারীরিক ও মানসিক সমস্যা ছিল। যা নিচে উল্লেখ করছি।

১। কয়েক বছর কোমড় ব্যথা ছিল। যা বহু ডাক্তার দেখিয়েছি ও টাকার বিনিময়ে কোমড় ব্যথার ব্যায়ামও শিখেছিলাম কিন্তু সামান্য ফল পেলেও স্থায়ী কোনো ফলাফল পাইনি। টানা ৩০ মিনিটের বেশি বসে থাকলেই কোমড় ব্যথা হয়ে যেতো ও কোনো কাজে মনোযোগী হতে পারতাম নাহ।
২। মেজাজ সবসময় খিটখিটে স্বভাবের ছিল অর্থাৎ অল্প তে রেগে যেতাম ও মাথা গরম থাকতে সবসময়।
৩। শরীরে অনেক চর্বি বেড়ে গিয়েছিল।
৪। পড়ালেখায় মনোযোগী হতে পারতাম নাহ।
কিন্তু এই ১৭ দিনে আল্লাহর রহমতে আমি অনেক সুস্থ আগের চেয়ে। আলহামদুলিল্লাহ।
১। আজকে সকাল ৭ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত টানা ০৭ ঘণ্টা বসে ছিলাম কিন্তু কোমড় ব্যথা হওয়ার কোনোই খবর নেই। এজন্য আলহামদুলিল্লাহ।
২। মেজাজ আগের চেয়ে অনেক ঠাণ্ডা স্বভাবের হয়েছে। এজন্য আলহামদুলিল্লাহ।
৩। আল্লাহর রহমতে এখন পড়ালেখায় মনোযোগী আসছে। এজন্যও আলহামদুলিল্লাহ।

সর্বোপরি সবার নিকট দোয়া চাই মহান আল্লাহ তাআলা যেন আমাকে হারাম ও অশ্লীল কাজ থেকে বিরত রাখে ও সুস্থ্যতা দান করেন এবং আমিও আপনাদের জন্য দোয়া করি মহান আল্লাহ তাআলা যেন আপনাদেরকেও হারাম কাজ থেকে বিরত রাখে ও সুস্থ্যতা দান করেন। আমিন।

Mukto Batasher Khoje (মুক্ত বাতাসের খোঁজে) গ্রুপ থেকে কোন এক ভায়ের লেখা পোস্ট 

Powered by Blogger.