অহংকারী | অহংকার নিয়ে উপদেশ, সংজ্ঞা, এবং গল্প

অহংকারী | আমাদের মাঝের অহংকার নিয়ে উপদেশ, সংজ্ঞা, এবং গল্প 

বাংলা লেখা


১. টাখনুর নিচে কাপড় ঝুলানো
ছেলেদের ক্ষেত্রে টাখনুর নিচে কাপড় ঝুলিয়ে রাখা হলো অহংকারের একটি লক্ষণ। হাদীসে এসেছে, আব্দুল্লাহ ইবন উমার(রা) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ(স) বলেন, “যে ব্যক্তি তার পরিধানের কাপড়কে অহংকারের সাথে মাটিতে হেঁচড়ে নিয়ে চলে, শেষ বিচারের দিনে আল্লাহ তার দিকে তাকাবেন না”। আবু বকর(রা) উপস্থিত ছিলেন, তিনি জানতে চাইলেন, “মাঝে মাঝে অসতর্কতার কারণে কারণে আমার পরিধেয় কাপড় একদিকে ঝুলে পড়ে”। রাসুলুল্লাহ(স) বলেন, “তুমি তা অহংকার থেকে করোনি”। (বুখারি)



অহংকারের প্রকাশ যেভাবে ঘটে -




২. দাঁড়িয়ে সম্মান প্রদর্শন কামনা করা
অন্য কেউ দাঁড়িয়ে সম্মান করুক এমন কিছু আশা করাও অহংকারের লক্ষণ। সে নিজেকে অন্যদের চেয়ে বড় মনে করে বলেই এমনটি আশা করে। 

আবি মিজলায (রা.) তিনি বলেন, ‘আমীর মুয়াবিয়া (রা.) আবদুল্লাহ ইবনে যুবাইর ও আব্দুল্লাহ ইবনে আমের (রা.) এর দরবারে উপস্থিত হলে, আব্দুল্লাহ ইবনে আমের (রা.) তার সামনে দাঁড়াল, আর আব্দুল্লাহ ইবেন যুবাইর (রা.) বসেছিল, সে দাঁড়ায়নি। মুয়াবিয়া (রা.) ইবনে আমেক বলল, তুমি বস! আমি রাসূল (সা.) কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, যে ব্যক্তি পছন্দ করে, লোকেরা তাকে দাঁড়িয়ে সম্মান করুক, সে যেন তার ঠিকানা জাহান্নামে করে নেয়।’ (আবু দাউদ, আলবানি হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন)

৩. কথাবার্তা-চালচলনের মাধ্যমে প্রকাশ
মানুষের কথাবার্তা, আচার-আচরণের মধ্যে অহংকার প্রকাশ পায়। কেউ যখন কেউ নিজেকে তার কথাবার্তা-চালচলনের স্মার্টনেসের জন্য মনে মনে নিজেরই তারিফ করে, নিজের মধ্যে গর্ববোধ করে এবং নিজেকে অন্যদের চেয়ে উত্তম মনে করে তখন সে অহংকার করল। আবু হুরায়রা (রা) হতে বর্ণিত আরেকটি হাদীসে এসেছে রাসুলুল্লাহ (স) বলেন, ‘একজন লোক হাঁটছিল, সে নিজের পরিধেয় পোশাক গর্বের সাথে মাটিতে হেঁচড়ে নিয়ে চলছিল, তার চুল ছিলো পরিপাটি করে আঁচড়ানো, আল্লাহ মাটিকে আদেশ করলেন তাকে গিলে ফেলতে এবং শেষ বিচারের দিন পর্যন্ত সে এইভাবে মাটির নিচে ডুবতে থাকবে।’ (সহীহ আল বুখারি, মুসলিম)

লোকমান আ. তার ছেলেকে বহুমূল্যবান কিছু উপদেশ দিয়েছিলেন। 
সেগুলো আল্লাহ তায়ালা কুরআনে উল্লেখ করেছেন এভাবে, ‘অহংকারবশে তুমি মানুষকে অবজ্ঞা করো না, পৃথিবীতে গর্বভরে পদচারণা করো না। নিশ্চয়ই আল্লাহ কোন দাম্ভিক অহংকারীকে পছন্দ করেন না। যমীনে চলার সময় তুমি মধ্যমপন্থা অবলম্বন করো এবং কন্ঠস্বর নিচু করো, নিঃসন্দেহে গাধার স্বরই সর্বাপেক্ষা অপ্রীতিকর।’ [লুকমান ৩১:১৮-১৯]

আবদুল্লাহ ইবনে উমার (রা.) বলেন, আমি রাসূল [সা.] কে বলতে শুনেছি, যে ব্যক্তি মনে মনে নিজেকে বড় মনে করে এবং হাঁটার সময় অহংকার করে, সে আল্লাহর সাথে সাক্ষাত করবে যে আবস্থায় আল্লাহ তা‘আলা তার উপর রাগান্বিত।’ (মুসনাদে আহমদ)

৪. ঠাট্টা বিদ্রূপ, চোগলখোরি, গীবত করা
অন্যকে নিয়ে উপহাস করা, তিরস্কার করা, অন্যের গীবত করা প্রভৃতি বিষয়ের মধ্যে মানুষের অহংকারের প্রকাশ ঘটে। যখন কেউ অন্যকে নিয়ে সমালোচনা করে তখন সে বুঝায় যে, সে নিজে এই সব দোষ থেকে মুক্ত। নিজেকে বড় করে এবং অন্যকে ছোট করে। 

৫. দরিদ্র-অসহায়দের সাথে মেলামেশা না করা
রাসুল (সা.)এর যুগে মক্কার কুরাইশদের অনেকেই এই কারণে ইসলাম গ্রহণ করেনি যে, এর ফলে তাদেরকে সামাজিকভাবে নিচু স্তরের লোকদের সাথে উঠাবসা করতে হবে। তাদের কর্তৃত্ব, প্রাধান্য আর বড়ত্ব তখন থাকবে না। তারা অন্যদের সমান হয়ে যাবে। সা‘দ বিন আবি ওয়াক্কাস (রা.) বলেন, আমরা ছয় ব্যক্তি রাসুল (সা.)এর মজলিশে উপস্থিত ছিলাম, তখন মুশরিকরা রাসুল (সা.) কে বলল, তাদের দূরে সরিয়ে দাও যাতে তারা আমাদের উপর প্রাধান্য বিস্তার না করে। তারপর আল্লাহ তায়ালা আয়াত নাযিল করলেন,
‘আর তুমি তাড়িয়ে দিয়ো না তাদেরকে, যারা নিজ রবকে সকাল সন্ধ্যায় ডাকে, তারা তার সন্তুষ্টি চায়। তাদের কোন হিসাব তোমার উপর নেই এবং তোমার কোন হিসাব তাদের উপর নেই, তাদেরকে তাড়িয়ে দিলে তুমি যালিমদের অন্তর্ভুক্ত হবে।’ (আল আন‘আম, ৬:৫১)

৫. ভুলের উপর অটল থাকা
অহংকারী ব্যক্তি নিজের মতের উপর অটল থাকে। তাতে যদি ভুল থাকে এবং অন্যকেউ যদি সংশোধন করে দেয়, তবুও সে নিজেকে শুধরায় না। সে মনে করে সে যা করছে তাই ঠিক। এমনকি সুস্পষ্ট প্রমাণকেও সে অস্বীকার করে নিজের দাম্ভিকতার কারণে।

৬. অন্যের থেকে সালাম কামনা করে নিজে অন্যকে সালাম দেয় না

অহংকারের পরিণাম

বিভিন্ন কারণে দুর্বল ঈমানের মানুষের মধ্যে অহংকার ঢুকে পড়াটা অস্বাভাবিক নয়। ধরুন, কারও অঢেল সম্পদ আছে। সেই অবস্থায় সে দরিদ্রদের ছোট চোখে দেখে। তাদেরকে নিচু শ্রেণীর মানুষ, ছোটলোক মনে করে। আবার কারও যদি বিদ্যার ভাণ্ডার থাকে সে অশিক্ষিতদের ছোট চোখে দেখে। অহংকার ঢুকে পড়া স্বাভাবিক হলেও এর পরিণতি খুবই ভয়াবহ। এর ভয়াবহতা সম্পর্কে হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যার মনে একটি অণু পরিমাণও অহংকার থাকবে সে জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না।’ (মুসলিম)

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘হাশরের ময়দানে, অহংকারী লোকগুলো পিঁপড়ার মত করে জড়ো হবে। অপমান তাদের চারদিক হতে ঘিরে ধরবে। তাদেরকে জাহান্নামের এমন একটি কয়েদে নিয়ে যাওয়া হবে যার নাম বা’লাস, তার মধ্য থেকে সবচেয়ে উত্তপ্ত অগ্নিশিখা নির্গত হবে, এবং তাদেরকে জাহান্নামিদের পুঁজ রক্ত পান করতে দেয়া হবে, যার নাম তিনাত আল খাবাল।’ (তিরমিযি)

হারিসা ইবনু ওহাব খুযায়ী (রা.) থেকে বর্ণিত নাবী (সা.), ‘আমি কি তোমাদের জান্নাতীদের সম্পর্কে অবহিত করবো না? (তারা হলেন): ঐ সকল লোক যারা অসহায় এবং যাদের হীন মনে করা হয়। তারা যদি আল্লাহর নামে কসম খেয়ে বসে, তাহলে তা তিনি নিশ্চয়ই পূরণ করে দেন। আমি কি তোমাদের জাহান্নামীদের সম্পর্কে অবহিত করবো না? তারা হলো: রুঢ় স্বভাব, কঠিন হৃদয় ও দাম্ভিক।’ (বুখারী)

কোনো অবস্থাতেই মানুষের জন্য অহংকার করা শোভা পায় না। কেননা, মানুষ যা কিছু নিয়ে অহংকার করে তা সবই আল্লাহ তায়ালার দান। সবকিছু তাঁরই। তাই অহংকার একমাত্র আল্লাহ তায়ালাই করতে পারেন। যে ব্যক্তি অহংকারের অনুপযুক্ত হয়েও অহংকার করে সে মূলত, আল্লাহর সাথে প্রতিযোগিতা করার চেষ্টা করে। আর এর পরিণতি খুবই মারাত্মক। আবু সাঈদ আল খুদরী(রা) ও আবু হুরায়রা(রা) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ(স) বলেন, ‘শক্তি তাঁর(আল্লাহর) কাপড় ও গর্ব তাঁর চাদর, যে কেউ এই বিষয়গুলো নিয়ে আমার(আল্লাহর) সাথে প্রতিযোগিতা করতে চায়, আমি (আল্লাহ) তাকে শাস্তি প্রদান করব।’ (মুসলিম)

অহংকার সবার জন্যই নিন্দনীয়। কিন্তু যার অহংকার করার কিছুই নেই, তারপরও সে যদি অহংকার করে তবে তা খুবই আশ্চর্যজনক ও অত্যধিক গুরুত্বর অপরাধ। এমন ব্যক্তির ক্ষমা পাওয়ার আশা ক্ষীণ। কেননা হাদীসে এসেছে, রাসুল (সা.) বলেন, ‘ক্বিয়ামত দিবসে আল্লাহ তা'আলা তিন ব্যক্তির সাথে কথা বলবেন না, তাদেরকে পবিত্র করবেন না, তাদের দিকে তাকাবেন না; বরং তাদের জন্য থাকবে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি। তারা হলো বৃদ্ধ ব্যভিচারী, মিথ্যাবাদী বাদশা আর অহংকারী দরিদ্র।’ (মুসলিম)

একজন মানুষের জন্য জাহান্নামের শাস্তি অপেক্ষা ভয়াবহ আর কী হতে পারে। সুস্পষ্টভাবে হাদীসে উল্লেখ এসেছে যে, অহংকারীর স্থান জাহান্নামে। এমনকি তার মধ্যে যদি অনু পরিমাণ অহংকারও থেকে থাকে। পরকালের শাস্তি ছাড়াও অহংকারীর জন্য দুনিয়াতেও অনেক শাস্তি রয়েছে। অহংকারী ব্যক্তিকে আল্লাহ তায়ালা ব্যর্থ করবেন। তাকে মানুষের চোখে ছোট ও নিকৃষ্ট করে দিবেন, যদিও সে চায় সবার দৃষ্টিতে বড় হতে। 

অহংকারের চিকিৎসা

অহংকার অন্তরের একটি ব্যাধি। শারীরিক ব্যধি যেমন আমাদের জন্য ক্ষতিকর, অন্তরের ব্যাধি তার চেয়ে বেশি ক্ষতিকর। কেননা, এটি মানুষকে চূড়ান্ত বিপর্যয় তথা আল্লাহর সাথে কুফরী করার মতো মারাত্মক পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারে। তার শারীরিক ব্যাধির মতো অন্তরের ব্যাধিরও চিকিৎসা প্রয়োজন।

১. আল্লাহ প্রকৃত মালিক:
মানুষকে স্মরণ রাখতে হবে যে, তার যেসব নিয়ামত আছে সেগুলোর একমাত্র প্রকৃত মালিক আল্লাহ তায়ালা। আল্লাহ তায়ালা দয়াকরে তাকে কিছু নিয়ামত দিয়েছেন। আর তিনি যখন ইচ্ছা তা নিয়েও নিতে পারেন। কুরআনে এসেছে, ‘আল্লাহ যাকে ইচ্ছা রিযিক সম্প্রসারিত করেন এবং যাকে চান সংকুচিত রিযিক দান করেন, কিন্তু এরা দুনিয়ার জীবনে উল্লসিত, অথচ দুনিয়ার জীবন আখেরাতের তুলনায় ক্ষণস্থায়ী ভোগ মাত্র।’ [সূরা রা'দ: ২৬] তাই এমন অবস্থায় ব্যক্তির জন্য অহংকার তো দূরের কথা তার উচিৎ আল্লাহর দানের জন্য তার প্রতি কৃতজ্ঞ হওয়া। 

২. সমৃদ্ধি পরীক্ষাস্বরূপ
একটা কথা স্মরণ রাখা আবশ্যক যে, আল্লাহ তায়ালার প্রদত্ত প্রত্যেকটি নেয়ামতই ব্যক্তির জন্য পরীক্ষাস্বরূপ। তিনি এই জীবন-মৃত্যুসহ সবকিছুই সৃষ্টি করেছেন মানুষকে পরীক্ষা করার জন্য। কুরআনে এসেছে, ‘তিনি মৃত্যু ও জীবন সৃষ্টি করেছেন যাতে তিনি পরীক্ষা করতে পারেন যে, কে তোমাদের মধ্যে কর্মে উত্তম।’ (সূরা মূলক, ৬৭:২)
তাই পার্থিব কোনো কিছু নিয়েই অতিরিক্ত খুশি হওয়া উচিৎ না। আবার পার্থিব কোনো ক্ষতির জন্যও খুব বেশি দুঃখিত হওয়া উচিৎ নয়। কুরআনে এসেছে, ‘যাতে তোমরা আফসোস না কর তার উপর যা তোমাদের থেকে হারিয়ে গেছে এবং তোমরা উৎফুল − না হও তিনি তোমাদেরকে যা দিয়েছেন তার কারণে। আর আল্লাহ কোন উদ্ধত ও অহঙ্কারীকে পছন্দ করেন না।’ (আল হাদীদ, ৫৭:২৩)

আল্লাহ যাকে ধন-সম্পদ দিয়েছেন, তার উচিৎ এগুলোকে আল্লাহর নির্দেশিত পথে ব্যয় করা। হারাম পথে ব্যয় করা থেকে বিরত থাকা। যাকে সৌন্দর্য দান করেছেন তার উচিৎ কৃতজ্ঞ হওয়া এবং এর দ্বারা অন্যদের ফিতনায় আক্রান্ত করার ব্যাপারে সতর্ক থাকা। আর যে এগুলো নিয়ে অহংকার করল, সে তার পরীক্ষায় ব্যর্থ হলো এবং তার জন্য রয়েছে কঠিন শাস্তি। 

৩. নিজের তুচ্ছতা
যখন ব্যক্তি অহংকার করে তাকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া উচিৎ যে, তাকে কী থেকে সৃষ্টি করা হয়েছে। মাটি থেকে! কুরআনে সূরা আল-কাহাফে যে দুই ব্যক্তির সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে, তাদের একজন যখন অহংকার করেছিল, অপরজন তাকে এই বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিয়েছিল। কুরআনে এসেছে, ‘তার সঙ্গী বলল, ‘তুমি কি তাকে অস্বীকার করছ, যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন মাটি থেকে, অতঃপর ‘বীর্য’ থেকে, তারপর তোমাকে অবয়ব দিয়েছেন পুরুষের’?’ (আল কাহাফ, ১৮:৩৭)

কুরআনের অন্যত্র আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘কখনও না, তারা জানে, আমি তাদের সৃষ্টি করেছি নিকৃষ্ট পদার্থ থেকে’ (আল মাআরিজ, ৩৯)

যে ব্যক্তিকে এত তুচ্ছ বস্তু থেকে সৃষ্টি করা হয়েছে কীভাবে সে অহংকার করতে পারে! বর্ণিত আছে, হাজ্জাজ ইবনে ইউসুফের সৈন্যদলের সদস্য মাহলাব ইবনে মুগীরা হযরত মাতরাফ ইবনে আবদুল্লাহ্ (রাহঃ) এর পাশ দিয়ে উত্তম পোষাকে অহংকারের সাথে যাচ্ছিল, হযরত মাতারাফ (রহঃ) বললেন, হে আল্লাহ্’র বান্দাহ! এ ধরনের চাল-চলন আল্লাহ্ পাকের পছন্দ নয়। মাহলাব বলতে লাগল, আমাকে চেননা? আমি কে? হযরত মাতরাফ (রহঃ) বললেন, খুব ভাল চেনি! তুমি প্রথমে নাপাক বীর্য্য ছিলে এবং শেষে দুর্গন্ধময় মৃতদেহ হয়ে যাবে, আর এখন তুমি দুর্গন্ধযুক্ত ময়লা বহন করে চলেছ।মাহলাব এ কথা শুনা মাত্র তার চলন ভঙ্গি পরিবর্তন করে দিল।

মানুষ খুবই দুর্বল। সে ততটুকুই করতে পারে যতটুকু করার তৌফিক আল্লাহ দেন। তাহলে তার এত অহংকার কীসের! আল্লাহ তায়ালা বলেন,
‘আর জমিনে বড়াই করে চলো না; তুমি তো কখনোই জমিনকে ফাটল ধরাতে পারবে না এবং উচ্চতায় কখনো পাহাড় সমান পৌঁছাতে পারবে না।’ (বনী ইসরাইল, ১৭:৩৭)

৪. বিনয় অবলম্বন করা
বিনয় অহংকারের বিপরীত। কারও যদি অহংকারের ভয় হয়, তবে তার অবশ্যই উচিৎ বিনয় অবলম্বন করা। হযরত ওমর (রা.) একদা মিম্বরে দাঁড়িয়ে বললেন, ‘হে লোক সকল! বিনয়ী হও। আমি রাসূলুল্লাহ (সা.)কে বলতে শুনেছি, যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য বিনয়ী হয়, তিনি তাঁর মর্যাদা বাড়িয়ে দেন। সে নিজের কাছে ছোট মনে হলেও মানুষের চোখে সম্মানী হয়। পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি অহংকার করে আল্লহপাক তাকে হেয় করে দেন। সে মানুষের নজরে তুচ্ছ হয় তখন নিজের কাছে বড় মনে হয়। শেষে সে মানুষের কাছে কুকুর ও শুকর অপেক্ষা ঘৃণিত হয়ে যায়। (মেশকাত শরিফ)

৫. দুআ করা ও আল্লাহর নিকট সাহায্য চাওয়া
দুআ মুমিনের হাতিয়ার। দুআ যে কতোখানি কার্যকর একটি উপায় তা মানুষের পক্ষে ধারণা করা সম্ভব নয়। আমাদের উচিৎ এই হাতিয়ারটিকে কাজে লাগানো। নিজেদের ও অন্যদের জন্য দুআ করা। অহংকার থেকে আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা করা। স্বয়ং নবী (সা.) আল্লাহর কাছে এর জন্য দুআ করেছেন। যুবাইর ইবনে মুতয়েম হতে বর্ণিত তিনি রাসুল (সা.)কে একবার সালাত আদায় করতে দেখেন। তখন তিনি তাকে এই কথাগুলো বলতে শোনেন।

‘আল্লাহ তায়ালা সব কিছু হতে বড়, আল্লাহ তায়ালা সব কিছু হতে বড়, আল্লাহ তায়ালা সব কিছু হতে বড়। আর সর্বাধিক প্রশংসা কেবল আল্লাহরই, সর্বাধিক প্রশংসা কেবল আল্লাহরই, সর্বাধিক প্রশংসা কেবল আল্লাহরই। আমি বিতাড়িত শয়তান থেকে আশ্রয় চাচ্ছি, আমি আরও আশ্রয় চাচ্ছি তার অহংকার, প্ররোচনা ও ষড়যন্ত্র থেকে।’ (ইবনে হিব্বান) 

অহংকারের কারণে পথভ্রষ্টদের দৃষ্টান্ত -

ইবলিশ আদমের আ. সামনে মাথা নত করতে অস্বীকার করেছে। কেননা সে আদমকে তার চেয়ে নিকৃষ্ট মনে করেছিল।সে বলেছিল, ‘আমি তো তার চাইতে উত্তম, আপনি আমাকে বানিয়েছেন আগুন থেকে আর তাকে বানিয়েছেন মাটি থেকে।’ (আল আরাফ, ৭:১১-১২)

এভাবে তার অবাধ্য হওয়ার একমাত্র কারণ ছিল তার অহংকার। সে তার ভুলের জন্য আল্লাহর কাছে তওবা করেনি। হয়তো তওবা করলে সে ক্ষমা পেত। কিন্তু সে জানে যে, তওবা করা মানে আদমের কাছে নিজের তুচ্ছতাকে স্বীকার করে নেওয়া। কিন্তু সে কিছুতেই তাতে রাজি নয়। সে কেবল অহংকারীই নয় প্রচণ্ড হিংসুটেও। সে মানুষের সুখ সহ্য করতে পারেনি। তাই সে মানুষকে পথভ্রষ্ট করে তাদের সুখশান্তি নষ্ট করার জন্য ব্রত হয়েছে। সে এজন্য আল্লাহর কাছ থেকে অবকাশও চেয়ে নিয়েছে। কুরআনে এসেছে,
‘সে বলল, ‘হে আমার রব, আমাকে সে দিন পর্যন্ত অবকাশ দিন যেদিন তারা পুনরুত্থিত হবে।’ তিনি বললেন, আচ্ছা তুমি অবকাশপ্রাপ্তদের অন্তর্ভুক্ত হলে- ‘নির্ধারিত সময় উপস্থিত হওয়ার দিন পর্যন্ত।’ সে বলল, ‘আপনার ইজ্জতের কসম! আমি তাদের সকলকেই বিপথগামী করে ছাড়ব।’ তাদের মধ্য থেকে আপনার একনিষ্ঠ বান্দারা ছাড়া।’ (সো‘দ, ৩৮:৭৯-৮৩)

ইবলিশ তো প্রমাণ করল যে, সে আল্লাহর মুখাপেক্ষী। তার কাছে কিছু না কিছু তো চাইলোই। ইচ্ছা করলে ক্ষমাও চাইতে পারত। কিন্তু তার প্রচণ্ড অহংকার তাকে এই কাজ থেকে বিরত রেখেছে। তাকে ধ্বংসের দ্বার গোঁড়ায় পৌঁছে দিয়েছে। 

এছাড়া কুরআনে বলা হয়েছে যে, ফিরাউন ও তার বাহিনী (কাসাস, ৩৮-৪২), সালেহ (আ.)এর কাওম সামুদ জাতি (আরাফ, ৭৫-৭৬), হুদ (আ.)এর কাওম আদ জাতি (ফুসসিলাত, ১৫-১৬), শুয়াইব (আ.)এর কাওম যারা ছিল মাদাইনের অধিবাসী (আরাফ, ৮৮), নূহ (আ.)এর কাওম ধ্বংস হয়েছিল তাদের অহংকারের কারণে। তারা অহংকার বশত আল্লাহকে অস্বীকার করত। কুরআনে আদ জাতির সম্পর্কে এসেছে,

‘আর আদ সম্প্রদায়, তারা যমীনে অযথা অহংকর করত এবং বলত, ‘আমাদের চেয়ে অধিক শক্তিশালী কে আছে’? তবে কি তারা লক্ষ্য করেনি যে, নিশ্চয় আল্লাহ যিনি তাদেরকে সৃষ্টি করেছেন তাদের চেয়ে অধিক শক্তিশালী? আর তারা আমার আয়াতগুলোকে অস্বীকার করত। তারপর আমি তাদের উপর অশুভ দিনগুলোতে ঝঞ্ঝাবায়ু পাঠালাম যাতে তাদেরকে দুনিয়ার জীবনে লাঞ্ছনাদায়ক আযাব আস্বাদন করাতে পারি। আর আখিরাতের আযাব তো অধিকতর লাঞ্ছনাদায়ক এবং তাদেরকে সাহায্য করা হবে না।’ (ফুসসিলাত, ১৫-১৬) 

নবী নূহ (আ.) যখন তার কাওমকে সত্যের দিকে আহ্বান করেছিলেন। তখন তারা অহংকার করে বলেছিল, ‘আমরা দেখছি যে, কেওল আমাদের নীচু শ্রেণীর লোকেরাই বিবেচনাহীনভাবে তোমার অনুসরণ করছে। আর আমাদের উপর তোমাদের কোনো শ্রেষ্ঠত্ব দেখছি না।’ (হুদ, ১১:২৭)

এছাড়া বনী ইসরাইল (বাকারা, ৮৭-৮৮) ও মক্কার কুরাইশদের (ফুরকান, ২০-২১) মধ্য থেকে যারা কুফরী করেছিল তাদেরকেও কুরআনে অহংকারী বলে সাব্যস্ত করা হয়েছে। সত্যি বলতে যার কাছে আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে সুস্পষ্ট নিদর্শন আসার পরও কুফরি করে, সে অহংকারী ছাড়া কিছুই নয়।

তথ্যসূত্র:
১. মুহাম্মাদ সালেহ আল-মুনাজ্জিদ, অন্তর বিধ্বংসী বিষয়সমূহ: অহংকার, অনুবাদ : জাকের উল্লাহ আবুল খায়ের, সম্পাদনা : ড. মোহাম্মাদ মানজুরে ইলাহী, islamhouse .com, ২০১১।
২. মির্জা ইয়াওয়ার বেইগ, journey of faith। 
৩. http://islamqa. info /en/9229

_
লেখা - Sanjida Sharmin
Share & Join with - SALAT

অহংকারী অর্থ - অহংকারী মানুষ


অহংকারী অর্থ দাম্ভিক। যে নিজেকে অন্যদের তুলনায় সেরা মনে করে কিংবা নিজের তুলনায় অন্যকে হেয়/ ছোট করে।


বানান বিশ্লেষণ: অ+হ্+অ+ং/ঙ্+ক্‌+আ+র্+ঈ
উচ্চারণ : ɔ.ɦoŋ.ka.ri (অ‌.হোঙ্.কা.রি)
শব্দ-উৎস: সংস্কৃত अहंकारी অহংকার>বাংলা অহংকারী, অহঙ্কারী।
রূপতাত্ত্বিক বিশ্লেষণ: অহম্+√কৃ (করা)+ইন্ (ণিনি)=অহম্-কারিন্>কর্তৃবাচ্যে অহংকারী, অহঙ্কারী।
পদ: বিশেষণ {নাম-বিশেষণ, গুণবাচক, ব্যক্তিবাচক, পুরুষবাচক}।
অর্থ: যার ভিতরে কোনো গর্ব নেই বা যে আচরণে বা বাক্যে গর্ব প্রকাশ করে না।
সমার্থক শব্দাবলি: অহংকারী, অহঙ্কারী।

বিপরীত শব্দ: অহংকারিণী/অহঙ্কারিণী [স্ত্রীলিঙ্গার্থ]
- Oonushilon.org

অহংকারী এর বিপরীত শব্দ - বিপরীত শব্দ অহংকারী


উত্তরঃ  অহংকারী এর বিপরীত শব্দ বিনয়ী।




অহংকারী মেয়ে


অহংকারী মেয়ে 
লেখক:-মো.নিলয়
-এই ছোট লোকের বাচ্চা, ছ্যাচরা তুই আমার রুমে ডুকার সাহস কিভাবে পেলি?(এনি)
-তোমাকে চাচি আম্মা ডাকে(শান্ত)
-আমার রুমে ডুকলি কেনো?
-স্যরি
-এই ছোট লোক তোর কি কখনো আক্কেল জ্ঞান হবে না? কারো রুমে প্রবেশ করতে হলে অনুমতি লাগে। তুই কি অনুমতি নিছিস?
-না
-তাহলে প্রবেশ করলি কেনো?
-আর এমন হবে না
-আমার সামনে থেকে যাহহ।
এই হচ্ছে এনি। মা-বাবার একমাত্র মেয়ে। এনি মেয়ে হিসাবে বদমেজাজি। বাকিটা কেমন সেটা আপনারা গল্পে গল্পে দেখতে পারবেন।
আর শান্ত তার নামানুযায়ী খুবই শান্ত। শান্ত এতিমখানা তে বড় হয়। এতিমখানা থেকে এনির বাবা শান্তকে তাদের বাড়িতে নিয়ে আসে। 
এনি আর শান্ত একই বয়সের। দুজন একই ক্লাসে পড়ালেখা করে।এনি শান্তকে সহ্য করতে পারে না। শান্ত যেনো এনির চোখের কাটা।
-মা আমাকে ডাকছো?(এনি)
-হ্যা(এনির মা)
-তুমি ডাকলে শান্তকে কেনো আমার রুমে পাঠাতে হবে?
-কি হয়ছে?
-কি না হয়ছে বলো?
-কি হয়ছে সেটা তো বলবি
-জানো যে ওরে দেখলেই আমার গা জ্বলে তা ও কেনো এই ছোট লোকের বাচ্চাকে পাঠাও
-এই চুপ কর।তুই কি সারাজীবন এমন ই থাকবি?
-হ্যা আমি এমন ই থাকবো।ওরে আমার সামনে আসতে না করবা বলে দিলাম।
-আচ্ছা শোন যেটার জন্য ডাকলাম
-হুম বলো

অহংকার বিপরীত শব্দ


-আজকে আমরা সবাই তোর বাবার বন্ধুর মেয়ের বিয়েতে যেতে হবে

-আমরা সবাই মানে?
-হুমম সবাই
-কে কে?
-তোর বাবা আমি তুই আর শান্ত
-তাহলে আমি যাবো না
-কেনো?
-শান্ত গেলে আমি যেতে পারবোনা
-গাড়ির ড্রাইভার আজকে আসবেনা
-গাড়ির ড্রাইভার হিসাবে যাবে?
-হুম, গোসল করে রেডি হ
-ওকে।
বিয়ে বাড়িতে যাওয়ার পরে শান্ত মনে মনে ভাবতে থাকে এখানকার সবাই কত দামি দামি পোশাক পরে আছে আর আমি? আমাদের মতো মানুষকে এই পৃথিবীতে পাঠানো হয়ছে মনে হয় এনিদের মতো মানুষের গোলামি করার জন্য।
এসব ভাবতে ভাবতে মন খারাপ করে ক্রিস্টিয়ানা পেরির সেড সং লাগিয়ে গাড়িতে বসে থাকে।
কতক্ষণ পরে এনির বাবা গাড়ির কাছে এসে শান্তকে ডাক দেয়।
-জি আংকেল কিছু বলবেন?
-তুমি গাড়িতে বসে আছো কেনো?
-এমনি
-চলো
-কোথায়?
-বিয়ের অনুষ্টানে
-না আমি যাবো না
-কেনো?
-এমনি
-এনির ভয়ে?
-না আংকেল
-তোমার আন্টি আমাকে সবকিছু বলছে।বাবা সবকিছুতে একটু কষ্ট করতে হয়। তোমার কষ্ট না হয় একটু বেশি হলো,আর আমি আর তোমার আন্টি কিন্তু তোমাকে আমাদের সন্তানের মতো দেখি।
-জানি আংকেল
-তাহলে চলো 
তখন শান্ত এনির বাবার সাথে ভিতরে যায়।
শান্ত সেখানে তার ক্লাসমেট কে দেখে কথা বলতাছে তখন এনি তাকে দেখে ফেলে।
এনি দোখার সাথে সাথে রাগে তার নাক মুখ লাল হয়ে যায়।এনি তখন মনে মনে ভাবে তাকে সবার সামনে লজ্জা দিতে হবে এই বলে শান্তর সামনে যায়।
শান্ত এনিকে দেখে তার ভিতর তখন হালকা ভয় কাজ করে।
-শান্ত এদিকে আসো(এনি)
-কিছু বলবা?(শান্ত)
-হুমম এই বলে তাকে আড়ালে নিয়ে যায়। কতক্ষণ পরে সেখান থেকে বের হয়ে আসে।
এনি শান্তকে সবার সামনে এনে ঠাস ঠাস করে গালে কয়েকটা থাপ্পর বসিয়ে দেয়।
সবাই তখন সব কিছু বাদ দিয়ে তাদের দিকে চেয়ে থাকে।
বাংলাদেশের শাস্ত্র মতো একটি মেয়ের কিছু হলে তার পক্ষ ধরে যেমন ছেলেরা ছুটে আসে ঠিক তেমনি তার সময় ও এমন হলো।
কয়েকটা ছেলে শান্তকে ধাক্কা দিতে দিতে বাহির করে দেয়।
শান্ত তখন একটু শব্দ করে কান্না করে দেয়। শান্ত সে নিজকে নিজে প্রশ্ন করতে থাকে, আমি কি কোনো দোষ করেছিলাম? আমি তো দোষ করিনি তাহলে কেনো আমাকে সবার সামনে এমন করলো।
আমি কি এনির কোনো রকম ক্ষতি করছি?
ওরে দেখলে তো আমার ভয় হয় । তাও ও কেনো আমার সাথে এমনটা করলো। মা-বাবা নাই বলে হয়তো আজ এমন টা করলো।
এসব ভাবতে ভাবতে গাড়ির ব
ভিতর ডুকে গ্লাসগুলো আটকিয়ে কান্না করতে থাকে।
প্রায় ৩০-৩৫ মিনিট পরে এনির বাবা শান্তর কাছে ছুটে আসে।
শান্ত কি হয়ছে(এনির বাবা)
-চোখ মুখ হাত দিয়ে মুছে, কিছু না আংকেল
-এনি নাকি তোমাকে থাপ্পর দিছে?
-তা কিছু না আংকেল। আমাদের জন্মই তো মার খাওয়ার জন্য , কারন আমরা তো এতিম
-বাবা এভাবে বলিস না , বাড়িতে যাওয়ার এর শেষটুকু দেখবো।
সন্ধ্যার দিকে সবাইকে নিয়ে শান্ত গাড়ির ড্রাইভিং করে বাসায় ফিরে।
বাসায় আসার পরে শান্ত কান্না করতে করতে শান্তর রুমে চলে যায়।
শান্ত রুমে গিয়ে দরজা আটকিয়ে কান্না করতে থাকে।
কতক্ষণ পরে এনির রুম থেকে চিল্লাচিল্লির আওয়াজ শোনা যাচ্ছে। এমন আওয়াজ শুনে শান্ত রুম থেকে বের হয়ে যেটা দেখলো তাতে সে বিশ্বাস করতে পারলো না..........................

অহংকার অর্থ কি 



অহংকারী মেয়ে
পর্ব -২
লেখক:-মো.নিলয়
শান্ত রুমে ডুকে দরজা আটকিয়ে কান্না করতে থাকে।
কতক্ষণ পরে এনির রুম থেকে চিল্লাচিল্লির আওয়াজ শোনা যাচ্ছে। এমন আওয়াজ শুনে শান্ত রুম থেকে বের হয়ে দেখে আংকেল এনির সাথে চড়া কন্ঠে কথা বলতাছে। তর্ক হতে হতে এক সময় এনিকে থাপ্পর মারে।
এনিকে থাপ্পর দেওয়ার পর এনি হঠাৎ চুপ হয়ে যায়।
-আংকেল ওকে মারছেন কেনো?(শান্ত)
-ও আস্তে আস্তে বেয়াদব হয়ে যাচ্ছে।ও যে আমার মেয়ে সেটা ভাবলে আমার কষ্ট হয়, আল্লাহ জানে কোন পাপের কারনে এমন মেয়ে আমাদের ঘরে জন্ম নিছে।
-থাক আপনি এসে পড়ুন বলে এনির বাবাকে শান্ত অন্য রুমে নিয়ে যায়।
কয়েকদিন পরে শপিং করার জন্য এনির বাবা এনির সাথে শান্তকে পাঠায়।
শান্ত যখন গাড়ি স্টার্ট করলো তখন........
-ঐদিকে পার্কের কাছে নিয়া যা(এনি)
-কেনো?(শান্ত)
-এই কুত্তারবাচ্চা এটা কি তোকে বলা লাগবে? তোকে আমার সাথে পাঠায়ছে আমি যা বলি তা করবি 
-আমাকে বকলেও আমার মা-বাবাকে বকা দিবানা
-ওরে মাহহ রে,তুই কোন হাজী সাহেবের পোলা?
-আমার বাবার কথা মনে নাই কিন্তু আমার স্পষ্ট মনে আছে আমার মা আমাকে অনেক আদর করতো, ছোট বলের মধ্যে পানি নিয়ে আমাকে গোসল করিয়ে দিতো।
-হয়ছে তোর বকবকানি বন্ধ করে পার্কের কাছে নিয়া যা।
পার্কে নিয়া যাওয়ার পরে একটা ছেলে এসে এনিকে হালকা ভাবে জড়িয়ে ধরে।
শান্ত ভাবে হয়তো এটা ওর বয়ফ্রেন্ড।
-তোমার কাজিন নাকি?(ছেলেটা)
-না, এটা আমার সার্ভেন্ট(চাকর)(এনি)
-ওহহহ 
-হুম চলো বলে হাত ধরে একটা দোলনাতে বসে।
কতক্ষণ কথা বলার পরে আসার সময় আরেকবার হাগ দিয়ে গাড়িতে উঠে পরে।
-তোমার বয়ফ্রেন্ড?
-এটা তোর না জানলেও চলবে
-ওহহ তা ও কথা
-শপিংমলে যা
-ওকে।
শপিং করে ফেরার পরে দুজন রেস্টুরেন্টে ডুকে।
এনি টেবিলে বসার পরে শান্ত যখন বসে।
-এখানে বসলি কেনো?(এনি)
-তুমি বসছো তাই
-জানোছ না তোর ফেইস দেখলে আমার গাঁয়ে জ্বর উঠে
-ওহহ স্যরি বলে শান্ত অন্য টেবিলে গিয়ে বসে।
শান্ত সব দিক দিয়েই স্মার্ট। শান্ত এনির সাথে এক ভার্সিটিতে কেমেস্ট্রি সাবজেক্টে অনার্স ৪র্থ বর্ষে পড়ালেখা করে।
শান্ত এত অবহেলার মাঝেও সে তার পড়ালেখা ঠিকভাবে চালিয়ে নেয়।
ভার্সিটিতে ক্লাস করে কম। আর কি কারনে কম করে সেটা তাদের ভিসি ও জানে। সবসময় ভালো রেজাল্ট করার কারনে ভিসি ও শান্তর সবকিছু ভেবে সেক্রিফাইস করে।
সামনে তাদের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা তাই পড়ালেখার একটু বেশিই চাপ।
শান্ত ৭-৮ দিন পরে ভার্সিটিতে আসে।ক্যাম্পাসে এসে দেখে এনি একটা গাছের নিচে বসে আড্ডা দিচ্ছে।
শান্ত সিড়িতে বসে বসে একটা বই হাতাহাতি করছে এমন সময় একটা মেয়ে এসে শান্তর পাশে বসে।
-হাই শান্ত
-হাই
-কেমন আছো?(মেয়েটি শান্তর ক্লাসমেট, নাম নিধি)
-আলহামদুলিল্লাহ, তুমি কেমন আছো?
-হুমম ভালো, তোমার উপস্থিতি কম কেনো?
-পার্সোনাল প্রবলেম
-ডোন্ট মাইন্ড একটা কথা বলি?
-হুম শিওর
-টাকার প্রবলেম নাকি?
-আরে না
-তাহলে?
-বললাম না পার্সোনাল প্রবলেম
-ওহ
-হুম
-ওকে, ক্লাসে যাবানা?
-হুমম চলো
ক্লাসে গিয়ে দুজন এক টেবিলে বসে।
শান্ত খেয়াল করে দেখে এনি তাদের দিকে চেয়ে আছে।
ক্লাস শেষ হওয়ার পরে বাসায় যায়।
বিকালের দিকে শান্ত ছাদের এক কোনে দাড়িয়ে থাকে তখন এনি পিছন দিয়ে এসে.......

অহংকার শব্দের অর্থ


-ভালোই তো প্রেম করছিস(এনি)
-প্রেম না
-কি?
-যাস্ট হাই হ্যালো
-হাই হ্যালো করতে কারো ২ঘন্টা লাগে জানা ছিলো না
-ফ্রেন্ড হিসাবে কথা তো বলতেই পারে
-হুম তা অবশ্য ঠিক। আর তোর মতো ছোটলোকের সাথে কে প্রেম করবে?
-এই কথা শুনে শান্ত তখন মুচকি হাসে
-তোর এই হাসিটা দেখলে আমার গায়ে ১০৫ ডিগ্রির জ্বর উঠে
-বায় 
-এই শোন
-কি
-কাল আমার বান্ধবীর হলুদ সন্ধ্যা, সেখানে আমার সাথে যেতে হবে
-অপমান করার জন্য নিবা?
-নাহ
-তো
-এত প্রশ্ন করিস কেনো?
-হুম ছোট লোকদের প্রশ্ন করতে নেয়
-হুম এইতো ভালো বুঝতে পারছিস
-বায়
বলে শান্ত ছাদ থেকে নেমে যায়।
পরের দিন এনি শান্তকে সাথে করে নিয়ে যায়।
সেখানে নিয়ে যাওয়ার পরে দেখে একেকবার একেকজন নাচানাচি করছে।
-দোস্ত আসতে এত দেরি করলি কেনো?(এনির বান্ববী ফারিহা)
-রাস্তায় জ্যাম ছিলো রে
-ওহহহ, শান্ত সেখানে গিয়ে বসো(ফারিহা)
-ওকে(শান্ত)
শান্তর আশে পাশের চেয়ারে এনি আর এনির কিছু বন্ধু বসে আছে।
হঠাৎ একটা মেয়ে এসে শান্তকে...................

অহংকারী বউ



অহংকারী মেয়ে
লেখক:-মো.নিলয়
পর্ব-৩
শান্তর আশে পাশের চেয়ারে এনি আর এনির কিছু বন্ধু বসে আছে।হঠাৎ একটি মেয়ে এসে শান্তর সাথে বসে। 
-হাই(মেয়েটি)
-হাই
-কেমন আছো?
-ভালো
-চলো
-কোথায়
-নিরিবিলি জায়গায়।
-কেনো?
-কথা বলবো
-না আমি যাবো না
-ভয় পাও নাকি?
-আমার ভালো লাগে না তাই যাবোনা,এখানে ভয়ের কি হলো?
তখন মেয়েটি শান্তর কাধে হাত রাখে
-ছাড়ুন বলছি
-না ছাড়লে কি করবা?
শান্ত তখন পিছনের দিকে চেয়ে দেখে এনির বন্ধুরা এসব দেখে হাসাহাসি করছে, শান্তর তখন বুঝার বাকি থাকলো না যে মেয়েটা কিসের জন্য তার সাথে এমন করছে।
-আমাকে এসব করে কি মজা পাও? একটু হাসাহাসি করো তাই না? আমার জায়গায় যদি তুমি থাকতে তাহলে কি করতা? আমি গরিব বলে এসব করো তাই তো?
-আসলে.....
-হয়ছে আর বলতে হবে না, এনি আমাকে সহ্য করতে পারে না।কিন্তু আমাকে সাথে করে নিয়ে আবার এখানেও আসছে।আমি আগেই জানতাম এনি আমাকে নিশ্চয় অপমান করার জন্য নিয়ে আসছে।
বলো তোমার সাথে কোথায় যেতে? আড়ালে নিয়া কিছু মার খাওয়াবা তাই তো? আড়ালে দরকার নেই আমার মতো ছ্যাচরা, ছোটলোক কে সবার সামনেই থাপ্পর মারা যায়। যেমন টা প্রায় সব ধনি লোকরা ই করে। আমাকে এখানেই থাপ্পর মারো, কিচ্ছু বলবো না বলে শান্ত চোখের পানি ছেরে দেয়।
মেয়েটি এসব শুনে তার হাসি মুখটা যেনো নিমিষেই খারাপ হয়ে যায়।
-স্যরি
-ছোট লোককে স্যরি বলা দরকার হয় না বলে শান্ত চেয়ার ছেরে উঠে গাড়িতে গিয়ে বসে থাকে।
রাত ৩বাজে তখন এনির মা শান্তর মোবাইলে ফোন করে।
-হ্যা আন্টি বলেন
-বাবা অনুষ্টান কি এখনো শেষ হয় নাই?
-প্রায় শেষ
-ওকে, তারাতারি এসে পর
-ওকে
শান্ত ফোন রেখে বাহিরে গিয়ে দেখে এনি সহ তার বন্ধু বান্ধবীরা নাচানাচি করছে।
শান্ত তখন নিজে নিজেই একটা হাসি দেয় আর বলে এটা-ই বুঝি বড়লোকদের নাচ।
শান্ত এনিকে ডাক দিয়ে মোবাইল দেখিয়ে ইশারা করে তখন এনি মোবাইল বের করে। দেখে তার মা তাকে অনেকগুলো কল দিয়ে রাখছে।এনি তখন সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে এসে পরে।
গাড়িতে উঠার পরে.....
-এই তারাতারি চালা(এনি)
-মদ পান করছো?
-বিয়ার খাইছি
-ওহহহ
-হ্যা 
শান্ত বুঝতে পারে এটা হয়তো তাদের নিত্যদিনের অভ্যাস। না হলে একটু হলেও মাতাল হতো কিন্তু তাকে দেখে মনে হয় না সে মাতাল।
কয়েকদিন পরে শান্ত ভার্সিটিতে যায়।
ভার্সিটিতে যাওয়ার পরে
নিধির সাথে দেখা হয়।
নিধির সাথে একই টেবিলে ক্লাস করে বাসায় ফিরে।
শান্ত প্রায় সময় ই বিকালে সময় টা কাটায় ছাদে।
শান্ত ছাদে বসে বসে আর ভাবে আজ যদি আমার মা-বাবা থাকতো কতো ভালো হতো।
ক্লাস করে ডিরেক্ট মায়ের বুকে ফিরতে পারতাম।মা তুমি কেনো আমাকে ছেড়ে চলে গেলা? আমার কিছু ভালো লাগে না রে মা।মা তুমি যাওয়ার সাথে আমাকে কেনো নিয়ে গেলা না?
আমার সামনে যখন বন্ধুদের মেবাইলে মা নামে সেইভ করা নাম্বারে ফোন আসে তখন অনেক খারাপ লাগে রে মা।
সবার মোবাইলে মায়ের কল আসলেও আমার মোবাইলে আসে না।হ্যা আল্লাহ্‌ আমার মা-বাবাকে নিয়ে আমাকে কেনো একা রেখে তাদের নিয়ে গেছো?
এসব বলতে বলতে শান্ত একটু শব্দ করে কান্না করে দেয়।
কতক্ষণ পরে এনি আসে।
-ভালোই প্রেম করছিস(এনি)
-কে?
-তুই
-কার সাথে
-ওমাহহহহহ এত ভাব নিচ্ছিস কেনো?
-কে ভাব নিচ্ছে
-নিধির সাথে যেভাবে কথা বলিস, মনে হয় অনেক আপন কেউ
- আমার ভালো লাগছেনা প্লিইজজ আমাকে এখন কোনো পেইন দিও না
-কিহহহ আমি তোরে পেইন দেই?
-মাফ চাই এখন যাও
-এটা আমার বাসা, আমার যেখানে মন চায় আমি সেখানেই থাকবো, আমাকে তুই নামার কথা বলার সাহস পেলি কোথায়?
-স্যরি বলে নিচে নেমে যায়।
রাতের খাবার খাওয়ার সময়.................





অহংকার অর্থ in english বা অহংকার এর ইংলিশ কি ?

অহংকার =  Arrogance.

 অহংকার ইংলিশ কি এরগেন্ট
অহংকারী | অহংকার নিয়ে উপদেশ, সংজ্ঞা, এবং গল্প অহংকারী | অহংকার নিয়ে উপদেশ, সংজ্ঞা, এবং গল্প Reviewed by Dr.Mira Hasan on January 26, 2020 Rating: 5
Powered by Blogger.